শনিবার জম্মু ও কাশ্মীরের পুঞ্চ জেলায় নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর অবস্থিত তিনটি সেক্টরে অবস্থিত ভারতীয় পোস্ট এবং গ্রামগুলিতে রাতভোর ভারি মর্টার বর্ষণ করা হয় পাকিস্তানের তরফে। এর প্রেক্ষিতে ভারতের তরফেও পাল্টা পদক্ষেপ নেওয়া হয় বলে খবর। 

পুলিশের এক কর্মকর্তার তরফে জানানো হয়েছে, শনিবার সকাল ৯টা নাগাদ, পাকিস্তানি সেনার তরফে বালাকোট এলাকায় ভারি গোলা বর্ষণ এবং ছোট মর্টারও  ছোঁড়া হয়। পাশাপাশি সংলগ্ন এলাকা মানকোট এবং মেনধার সেক্টরে সকাল ১০টা লাগাদ একইভাবে গোলা বর্ষণ করা হয় পাক সেনার তরফে। সূত্রের তরফে আরও জানা গিয়েছে যে, রাতভোর গুলির লড়াই অব্যাহত ছিল দুই পক্ষের মধ্যে। 

দুই পক্ষের এই উত্তেজনার জেরে বালাকোটের এক স্কুলের ৫০ জন পড়ুয়া আটকে পড়েছিল বলে জানা গিয়েছে। গোলাগুলি কমলে পুলিশ প্রসাসনের তরফে তাদের নিরাপদে স্থানান্তরিত করে নিয়ে যাওয়া হয় বলে খবর। সেক্টরের অন্যান্য এলাকা থেকেও এই একই ধরনের খবর প্রকাশ্যে এসেছিল। সেইসব শিশুদেরও নিরাপদে বাড়ি পাঠানো হয়েছে বলে খবর। 

যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘনের জের, সাদা পতাকা দেখিয়ে উদ্ধার করা হল নিহত দুই পাকিস্তানি সেনাকে

এটিএম-এ টাকা তোলার আগে সাবধান, নিয়মে আসতে চলেছে পরিবর্তন, জেনে নিন

পুঞ্চের ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট রাহুল যাদব জানিয়েছেন, গোলাবর্ষণ হলেও এখনও পর্যন্ত হতাহতের কোনও খবর নেই। সীমান্তের বাসিন্দাদেরও সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে, এবং যেকোনও পরিস্থিতিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও নিতে বলা হয়েছে। সূত্রের খবর বালাকোট সেক্টর থেকে শুরু করে পাক সেনারা একটু একটু করে সীমান্তের মেনধান এবং মানকোট সেক্টরেও ছড়িয়ে পড়েছিল। প্রায় ৫০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে গোলাবর্ষণের ফলে প্রায় ৪০ থেকে ৫০টি গ্রাম ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে কিছু যানবাহন এবং গবাদি পশুও। যদিও এখনও হতাহতের কোনও ঘটনা ঘটেনি বলেই জানা গিয়েছে।