এখনও কেন্দ্রের চালু করা 'এক দেশ এক রেশন কার্ড' বা  ওএনওআরসি (ONORC) প্রকল্প বাস্তবায়ন করেনি পশ্চিমবঙ্গ। শুক্রবার, বিচারপতি অশোক ভূষণ ও বিচারপতি এম আর শাহের একটি বেঞ্চ রাজ্যকে অবিলম্বে এই প্রকল্প বাস্তবায়নের  নির্দেশ দিয়েছে। আর এরপরই এই বিষয় নিয়ে মমতা সরকারের কঠোর   সমালোচনা করল বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

বিধানসভা নির্বাচনে বাংলার একটি বড় অংশের কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক ছিলেন কেন্দ্রীয় জলশক্তি মন্ত্রী গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াত। এদিন সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পরই তিনি টুইট করে বলেন, 'কোনও অজুহাত দেওয়া যাবে না' বলে সুপ্রিম কোর্ট পশ্চিমবঙ্গকে অবিলম্বে ওয়ান নেশন ওয়ান রেশন কার্ড প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বলেছে। আশা করি মমতা সরকার এই আদেশটি মেনে চলবে এবং দরিদ্র বাঙালিদের বিশেষত পরিযায়ী শ্রমিকদের দ্রুত সুবিধাটি পেতে দেবে।'

বিজেপির আইটি সেলের প্রধান তথা বাংলার সহ-পর্যবেক্ষক অমিত মালব্য টুইট করেছেন, 'সুপ্রিম কোর্ট পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে অবিলম্বে ওয়ান নেশন, ওয়ান রেশন কার্ড প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বলেছে। আশা করি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আর দেরি না করে দরিদ্র, বিশেষত পশ্চিমবঙ্গ থেকে আসা পরিযায়ী শ্রমিকদের খাদ্য সুরক্ষা সরবরাহ করার বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মেনে চলবেন।'

বিধানসভা নির্বাচনের সময় বারবার বাংলায় এসেছেন কেন্দ্রীয় বস্ত্র এবং শিশু ও নারী কল্যান মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি। তাঁর বাংলায় বক্তৃতা দারুণ জনপ্রিয় হয়েছিল। তিনিও এই বিষয়ে টুইট করেছেন। তিনি বলেছেন, 'আশা করি বাংলার মুখ্য়মন্ত্রী অন্তত রাজ্যের দরিদ্র মানুষের পক্ষে দেওয়া সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা মেনে চলবেন'।

আরও পড়ুন - মোদী সরকারের টিকাদান পরিকল্পনা কি ভুল - বাড়তে পারে মিউট্যান্ট স্ট্রেনের দাপট, এল সতর্কবার্তা

আরও পড়ুন - গত ৩ সপ্তাহে মৃত্যু ২১০০-রও বেশি, কালো ছত্রাক সংক্রমণের ঘটনা বাড়ল দেড়শ শতাংশ

আরও পড়ুন - মহামারির ২০২১-এ থাকার জন্য সবচেয়ে ভাল শহর কোনগুলো জানেন, দেখুন ছবিতে ছবিতে

এদিন, বিচারপতি অশোক ভূষণ ও বিচারপতি এম আর শাহের একটি বেঞ্চকে, ভারতের সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতা জানান, দিল্লি, পশ্চিমবঙ্গ, অসম এবং ছত্তিশগড় - সারা দেশের মধ্য়ে একমাত্র এই চারটি রাজ্যই এক দেশ এক রেশন কার্ড প্রকল্প বাস্তবায়িত করেনি। দিল্লির আইনজীবী অবশ্য প্রতিবাদ করে জানান,দিল্লি এই প্রকল্প ইতিমধ্যেই রূপায়িত করেছে। পশ্চিমবঙ্গের আইনজীবী আধার কার্ড সংক্রান্ত সমস্যার বিষয় তুলে ধরেছিলেন। আদালত কিন্তু তা শোনেনি, বরং সাফ জানিয়েছে কোনও অজুহাত দেওয়া চলবে না, রাজ্যকে অবিলম্বে এই প্রকল্প বাস্তবায়িত করতে হবে।