পূর্ব লাদাখের যদি চিনের সঙ্গে যুদ্ধ হয় তাহলে অনেকটাই বেশি সুবিধে পাবে ভারতীয় বিমান বাহিনী। তেমনই আশা করেছেন বায়ু সেনা প্রধান আরকেএস ভাদৌরিয়া। তিনি বলেন যেকোনও হুমকি বা চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করার জন্য কৌশলগত অবস্থানে অনেকটাই সুবেধেজনক পরিস্থিতিতে রয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনা। পাশাপাশি দেশের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে বায়ু সেনার মোতায়েনও জোরদার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।  

আট অগাস্ট বিমান বাহিনীর প্রতিষ্ঠা দিবস। সেই উপলক্ষ্যে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সোমবার তাই নিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলে বিমান বাহিনীর প্রধান। সেখানেই তিনি বলেন চিনা বিমান বাহিনী শক্তিশালী হতে পারে। কিন্তু লাদাখে এগিয়ে রয়েছে ভারতীয় বিমান বাহিনী। ভারতের  তুলনায়  চিনা বিমান বাহিনী কখনই বেশি ভালো ফলাফল করতে পারবে না বলেই অভিমত তাঁর। পাশাপাশি তিনি মনে করিয়েছেন এই মূল্যায়নের অর্থ কখনই এই নয় যে প্রতিরক্ষারে শক্তিকে অবমূল্যায়ন করা হচ্ছে। একই সঙ্গে তিনি পাকিস্তানের প্রসঙ্গও উত্থাপন করেন। তিনি বলেন, উত্তর ও পশ্চিম সীমান্ত একসঙ্গে যুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি হতে তা মোকাবিলায় প্রস্তুত ভারতীয় বিমান বাহিনী। তিনি স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছে যেকোনও পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য তৈরি রয়েছে ভারতীয় বায়ু সেনার জওয়ানরা। 

বায়ু সেনার প্রধান জানিয়েছেন লাদাখ একটি ছোট এলাকা। তা সত্ত্বেও সমস্ত টার্গেট এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে বায়ু সেনার জওয়ানদের। উত্তরাঞ্চলীয় সীমান্তে যে কোনও পদক্ষেপ করার জন্য তৈরি রয়েছে বায়ু সেনা। গত পাঁচ মাস ধরেই চিন লাদাখের বিস্তীর্ণ এলাকায় সেনা মোতায়েন করে রেখেছে। বেশ কয়েকটি এলাকায় প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা পার করে ভারতীয় ভূখণ্ডে প্রবেশ করেছে বলেও অভিযোগ। তাই চিনের লালফৌজদের মোকাবিলায় ভারতও লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা এলাকায় সেনা জওয়ান মোতায়েন করেছে। পাশাপাশি ফরোয়ার্ড এলাকায় রাখা হয়েছে যুদ্ধ বিমানগুলিকেও।