রাজ্যসভা নির্বাচনের আগেই কংগ্রেসের অস্বস্তি আরও বাড়িয়ে দল ত্যাগ করলেন দুই বিধায়ক। আর দুই বিধায়কের পদত্য়াগের ফলে দ্বিতীয় আসন জেতার অনেকটাই কঠিন হয়ে গেল শতাব্দী প্রাচিন দলটির কাছে।  

১৮২ আসনের গুজরাত বিধানসভায় ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সদস্য সংখ্যা ১০৩। কংগ্রেসের মাত্র ৬৬ জন বিধায়ক। রাজ্যসভায় চারটি আসন বরাদ্দ। ইতিমধ্যেই বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বীতায় দুটি আসনে জিতে গেছে বিজেপি। একটি আসনে জয় নিশ্চিত করেছে কংগ্রেসও। কিন্তু দ্বিতীয় আসনে জয় পাওয়া এখন আর নিশ্চিত নয়। এই আসনটি তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বীতা হবে মনে  করছে রাজনৈতিক মহল। তৃতীয় আসনের ইতিমধ্যেই প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে বিজেপি। এই আসনটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন প্রাক্তন কংগ্রেসের প্রাক্তন নেতা নরহরি আমিন।  গুজরাত থেকে রাজ্যসভায় যাওয়ার জন্য যে কোনও প্রার্থীর কমপক্ষে ৩৪ জন বিধায়কের সমর্থন প্রয়োজন। 

কেরলে হাতির মৃত্যু 'পরিকল্পিত খুন' বললেন রতন টাটা, হিংসাত্মক জেলা মালপ্পুরম বলেন মানেকা গান্ধী ...
গুজরাত বিধানসভার স্পিকার রাজেন্দ্র ত্রিবেদী এদিন জানিয়েছেন দুই কংগ্রেস বিধায়ক অক্ষয় প্যাটেল ও জিতু চৌধুরী পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছে। তাঁদের পদত্যাগপত্রও গ্রহণ করা হয়েছে।  

লকডাউনে ফাঁক থাকায় করোনা সংকট কমেনি ভুল পথে চালিত হয়েছি, মন্তব্য শিল্পপতি রাজীব বাজাজের ...

এই পরিস্থিতিতে চতুর্থ আসনটি ধরে রাখতে রীতিমত কালঘাম ছুটছে কংগ্রেসের। কারণ বিজেপি রাজ্যসভার তিনটি আসনের জন্য মনোনীত করেছে নরহরী আমিন, অভয় ভরদ্বাজ, রমিলাবেন বোরাকে। পাল্টা কংগ্রেসের দুই প্রার্থী হলেন শক্তিসিং গোহিল আর ভারতসিং সোলাঙ্কি। কারণ কংগ্রেসের এক প্রার্থীর জয় নিশ্চিত। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে কংগ্রেসকে চরম সিদ্ধান্ত নিতে হবে কে তার প্রথম পছন্দ।  গুজরাটে কংগ্রেসের জোট সঙ্গি এনসিপির এক জন বিধায়ক রয়েছে। সেই বিধায়ক কাকে ভোট দেশে তা এখনও স্পষ্ট নয়। 

অন্যদিনে বিধায়ক ভাঙানোর অভিযোগ তুলে আবারও সরব হয়েছে কংগ্রেস। যদিও বিজেপি তা অস্বীকার করেছে। প্রাক্তন কংগ্রেস নেতা নরহরী আমিন জানিয়েছেন আগামী দিনে কংগ্রেসের আরও বেশ কয়েকজন বিধায়ক পদত্যাগ করবেন। কারণ তাঁরা দলের রাজ্যস্তরের নেতাদের আচরণে খুবই অসন্তুষ্ট। আগামী ১৯ জুন রাজ্য়সভা নির্বাচন। 

চিনের স্কুলে নিরাপত্তারক্ষীর ছুরি নিয়ে হামলা, করোনা সংকট কাটিয়ে ওঠার পরই নতুন বিপদ