করোনাভাইরাসের সংকট কাটিয়ে উঠে সবে ছন্দে ফেরার চেষ্টা করছে চিন। খুলতে শুরু করেছে সব স্কুল। আর তারই মধ্যে ঘটে গেল নতুন বিপদ। এক নিরাপত্তারক্ষীর ছুরির হামলার রীতিমত জখম একটি কিনডারগার্ডিন স্কুলের  ৩৭ জন পড়ুয়া ও দুই প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তি। 

লকডাউনে ফাঁক থাকায় করোনা সংকট কমেনি ভুল পথে চালিত হয়েছি, মন্তব্য শিল্পপতি রাজীব বাজাজের ...

'করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই শিথিল হচ্ছে লকডাউনের নিয়ম', সমালোচনা রাহুলের ...

 সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ যখন দক্ষিণ চিনের গুয়াংজি প্রদেশে এই ভয়ঙ্কর হামলা চালান হয়। ওয়াংফু সেন্ট্রাল প্রাইমারি স্কুলেই ছুরি হাতে ঢুকে পড়ে হামলাকারী। অন্য দিনের মত সেই সময়ও ক্লাস চলছিল স্কুলটিতে। যথেষ্ট সক্রিয় ছিল ক্ষুদে পড়ুয়ারা। তাদের অতর্কিতেই হামলা চালান হয়। এই ঘটনায় রীতিমত আতঙ্কিত হয়ে পড়ে স্কুলের বাকি পড়ুয়া ও শিক্ষকা শিক্ষিকারা। পরি অবশ্য পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এই ঘটনায় জখম ৩৯ জনকে ভর্তি করা হয়েছে হাসপাতালে। স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, এক পড়ুয়া, এক নিরাপত্তারক্ষী ও স্কুলের প্রধানের অবস্থা যথেষ্ট আশঙ্কা জনক। 

কেরলে হাতির মৃত্যু 'পরিকল্পিত খুন' বললেন রতন টাটা, হিংসাত্মক জেলা মালপ্পুরম বলেন মানেকা গান্ধী ...

অভিযুক্তকে চিহ্নিত করা ইতিমধ্যেই আটক করেছে স্থানীয় প্রশাসন। তবে কী কারণে এই হামলার ঘটনা সে সংগঠিত করেছিল তা এখনও স্পষ্ট নয় তদন্তকারীদের কাছে। পুরো বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে বলেও স্থানীয় প্রশাসনের তরফে জানান হয়েছে।

প্রতিবাদীদের আশ্রয় দিয়ে মার্কিন মুকুলে 'হিরো' রাহুল দুবে, বললেন এটা এমন কিছু নয় ...

চিন প্রশাসনের দেওয়া হিসেব অনুযায়ী জানা যায় গত কয়েক বছর ধরেই চিনে স্কুলে হামলার ঘটনা বেড়েছে। ২০১৮ সালে এক মহিলা ছুরি নিয়ে হামলা চালায়  চংকিং প্রদেশে। সেই ঘটনায় ১৪ জন পড়ুয়া গুরুতর জখম হয়েছিল। ২০১০ সালে স্কুলে হামলার ঘটনায় ২০ জনের মৃত্যু হয়েছিল।