ভরতে এখনও করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিস্ফোরণ ঘটেনি। কিন্ত এখনও ভয়ঙ্কর পরিণতির আশঙ্ক রয়েই গেছে। জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত মিশেল রেহান। জেনিভায় একটি অনুষ্ঠানে তিনি বলেন গত তিন সপ্তাহ ধরে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুণ হচ্ছে। যা ভারতের মত জনবহুল দেশে রীতিমত আশঙ্কার বিষয় বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। 


মিশেলের কথায় মহামারীর সময় সফরের ছাড়পত্র দেওয়ার পরই আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে গেছে বলেও তিনি মনে করেন। তাঁর ভারতের বিভিন্ন এলাকায়ক চরিত্র ভিন্ন। গ্রাম থেকে শহরের পরিকাঠামো বা পরিষেবাও সম্পূর্ণ ভিন্ন। তাই সংক্রমণে রোখার পরিকল্পনা করাই জরুরি।মিশেল সরাসরি বলেছেন ভারতের মত বিশাল দেশে গ্রাম ও শহরের বেশ কিছু এলাকায় জনঘনত্ব অনেক বেশি। তাই সেইসব এলাকাগুলিকে সংক্রনণের আশঙ্কা বেশি রয়েছে বলেও সতর্ক করেছেন। তিনি বলেছেন ভারতে বিভিন্ন জায়গায় করোনা সংক্রমণের হার বিভিন্ন। লকডাউন কিছুটা হলেও করোনাভাইসারে সংক্রমণের হার কমিয়ে রাখতে পেরেছিল। কিন্তু আনলক শুরু হওয়ার পর থেকেই দেখা যাচ্ছে সংক্রমণে মাত্র আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে গিয়েছে। 


মিশেলের কথায় শুধু ভারত নয়। দক্ষিণ এশিয়ার একাধিক দেশেই এই মুহুর্তে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ভয়ঙ্কর আকার নিয়েছে। পাকিস্তান ও বাংলাদেশও ঝুঁকিপূর্ণ দেশ বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। 

করোনার কোপে কি প্রকল্পও, আগামী এক বছর নতুন পরিকল্পনা নয় বলে ঘোষণা অর্থমন্ত্রকের

মমতার মুখে বঙ্গ আর দিলীপের মুখে পদ্ম, রাজ্যে কি শুরু হল 'মাস্ক রাজনীতি' ...

'যোগ দিবস'-এ লেহ সফর অনিশ্চিত প্রধানমন্ত্রীর, ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানের দিকেই সায় কেন্দ্রের ...

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশিষ্ট বিজ্ঞানী সৌম্যা স্বামীরঙ্গনাথন জানিয়েন ১৩০ কোটির দেশে এখনও পর্যন্ত দুলক্ষের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। তুলনামূলক বিচারে সংখ্যা অনেকটাই কম। কিন্তু আগামী দিনে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির হার যাতে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায় সেদিকেই জোর দেওয়া প্রয়োজন বলেও তিনি জানিয়েছেন। তাঁর কথায় ভারতের মত বিশাল দেশে বহু ধর্মের মানুষ বাস করেন। তাঁদের জীবন চর্যাও ভিন্ন ধরনের। তাই প্রতিটি পদক্ষেপ খুবই চিন্তা করে নেওয়া প্রয়োজন। লকডাউন ও আনলকের সময় যাতে সবাই স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলে সেদিকেও নজর দেওয়া প্রয়োজন বলে তিনি মন্তব্য করেন। 


শনিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্যে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ২,৩৬,৬৫৭। এখনও পর্।ন্ত মৃত্যু হয়েছে ৬৬৪২ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৯.৮৮৭। মৃত্যু হয়েছে ৬৬২৪ জনের। বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের ক্রম তালিকায় ভারতের স্থান ষষ্ঠ।