আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমলেও ভারতের বাজারে আবারও মহার্ঘ্য হল পেট্রোল আর ডিজেল। ৮০ দিন থেমে থাকার পর রবিবার প্রথম দাম বাড়ানো হয়। তারপর সোমবারের পর মঙ্গলবারও দাম বাড়ানো হয় জ্বালানী পণ্যের। সোমবার পেট্রোল আর ডিজেলের দাম ৬০ পয়সা করে বাড়ানো হয়েছিল। আর মঙ্গলবার পেট্রোলের দাম লিটার প্রতি বাড়ানো হয়েছে ৫৪ পয়সা। ডিজেলের দাম লিটার প্রতি ৫৮ পয়সা বেড়েছে। ৮৩ দিনে এই নিয়ে তিন বার দাম বাড়ল পেট্রোল আর ডিজেলের। 

এবার এক নজরে দেখে নেব দেশের চার মোট্রো শহরে জ্বালানী তেলের দাম। 


৪ মেট্রো শহরে পেট্রোল ডিজেলের দাম

শহর                 পেট্রোল                    ডিজেল

দিল্লি                   ৭৩                           ৭১.১৭
কলকাতা            ৭৪.৯৮                    ৬৭.২৩
মুম্বই                  ৮০.০১                      ৬৯.৯২
চেন্নাই                 ৭৭.০৮                      ৬৯.৭৪

  *ইন্ডিয়ান ওয়েল   

নিয়মিত পর্যালোচনার জন্য গত ১৬ই মার্চ  তেলার দাম স্থির রেখেছিল সরকার অধিকৃত তেল সংস্থাগুলি। করোনাভাইরাসের কারণে সেই সময় আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম ছিল টলমল অবস্থায়। কিন্তু এখন আন্তর্জাকিত বাজারে তেলের দাম কিছুটা হলেও স্থির রয়েছে। প্রায় তিন শতাংশ কমে যাওয়ার পর অপরিশোধিত তেলের দাম এখন কিছুটা হলেও স্থির। প্রায় ব্যারেল প্রতি দাম বেড়েছে ১.১৩ মার্কন ডলার থেকে ৪১.২৫ মার্কিন ডলার। 

রাষ্ট্রায়ত্ব তেল সংস্থাগুলি মাঝে মাঝে পেট্রোল ও ডিজেলের দাম সংশোধন করে। পাশাপাশি বিমান চলালের জন্য টারবাইন ফুয়েল বা জেট ফুয়েল ও তরল পেট্রোলিয়ামের দামই স্থির হয়। গত ১৬ মার্চ থেকে অস্থিরতার কারণে রাষ্ট্রয়াত্ত্ব সংস্থাগুলি তেলের দাম বাড়ায়নি। লকডাউনের কারণে যানবাহনও কম ছিল রাস্তায়। কিছুটা হলেও চাহিদা কম ছিল। কিন্তু ধীরে ধীরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হচ্ছে। এই অবস্থায় চাহিদা বাড়ছে জ্বালানী তেলের। কিন্তু এখন তেলের দাম স্থির হওয়ায় আগামী দিনে দাম আরও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও সূত্রের খবর। 

তবে লকডাউনের সময় রাজস্বের ঘাটতি মেটাতে বেশ কয়েকটি রাজ্য পরিবহণ জ্বালানীর ওপর শুল্ক আরোপ করেছিল।