বিদ্বেষ ছড়ানোর অভিযোগে এবার প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা বিজেপি নেত্রী ও পশুপ্রেমী মানেকা গান্ধীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হল। কেরলের মালাপ্পুরমের আইনজীবী সুভাষ চন্দ্রন জেলা পুলিশ সুপারের কাছেই অভিযোগ দায়ের করেছেন। তাঁর অভিযোগ  একটি গর্ভবতী হাতির মৃত্যুকে কেন্দ্র করে মালাপ্পুরম জেলা ও জেলার বাসিন্দাদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়াচ্ছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। 

কেরলের সাইলেন্ট ভ্যালি অভয় অরণ্যের একটি গর্ভবতী হাতিকে বাজি ভর্তী আনারস খাইয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ। আর এই ঘটনা নিয়ে নিজের বক্তব্য় জানাতে গিয়ে পশুপ্রেমী মানেকা গান্ধী বলেছিলেন, দেশের মধ্যে সব থেকে হিংসাত্মক জেলা হল মালাপ্পুরম। 
আইনজীবীর অভিযোগ মানেকা গান্ধীর বক্তব্য ভিত্তিহীন। জেলা ও জেলার বাসিন্দাদের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন  বক্তব্য পেশ করিছেলন। তাই  মানেকা গান্ধী ও বাকি তিন বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

কেরলে হাতির মৃত্যু 'পরিকল্পিত খুন' বললেন রতন টাটা, হিংসাত্মক জেলা মালপ্পুরম বলেন মানেকা গান্ধী ..

আইনজীবী আরও জানিয়েছেন, গত ২৯ মে পালাক্কাডে গর্ভবতী হাতির মৃত্যু হয়েছিল। মালাপ্পুরম জেলায় নয়।  পালাক্কাড জেলায় মৃত্যু হয়েছিল হাতিটির। তাঁর আরও অভিযোগ, গর্ভবতী হাতির মৃত্যু নিয়ে গত দুদিন ধরে উত্তাল ছিল সোস্যাল মিডিয়া। সেখানে হাতির মৃত্যু থেকে অনেক জায়গায়ই গুরুত্ব পেয়েছিল সাম্প্রদায়িক আলোচনা। একদল মানুষ ঘটনায় সাম্প্রদায়িক রং চড়াতেও ব্যস্ত ছিলেন। 

গর্ভবতী হাতি হত্যায় রাজনৈতিক উত্তাপ ক্রমশই বাড়ছে, মুখ খুললেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী ..

ডনের ঘরে করোনার হানা, দাউদ দম্পতি ভর্তি করাচির সেনা হাসপাতালে ...

কিন্তু মালাপ্পুরমকেই কেন টার্গেট করা হয়েছিল ? 

সরকারি হিসেব অনুযায়ী এই জেলায় অধিকাংশ বাসিন্দাই মুসলিম। কেরলের মুসলিম অধ্যুষিত জেলাগুলির মধ্যে প্রথমেই রয়েছে মালাপ্পুরমের স্থান। হাতির মৃত্যু নিয়ে মানেকা গান্ধী প্রথম থেকেই টার্গেট করেছিল মালাপ্পুরমকে। তাঁর কথায় এই জেলায় নারী হত্যা প্রায়ই হয়। হিন্দু মুসলিম উত্তেজনাও প্রবল। সবসময় ভয়ের বাতাবরন তৈরি থাকে গোটা এলাকা জুড়ে। কিন্তু কেন্দ্রীয় মন্ত্রকের তথ্যে দেখা যাচ্ছে সম্পূর্ণ অন্য ছবি। খুন, হত্যার চেষ্টা, পণের জন্য খুন, চুরি, ছিনতাই, ধর্ষণ এই জাতীয় অপরাধে ভারতের প্রথম ৩০০টি জেলার মধ্যে নাম নেই মালাপ্পুরমের।