৬ মাসের জন্য স্ট্যান্ড আপ কমেডিয়ান কুণাল কামরার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে বিমান সংস্থা ইন্ডিগো। অর্থাৎ এই ছয় মাস ইন্ডিগোর বিমানে উঠতে পারবেন না এই কমেডিয়ান। তার পরিপ্রেক্ষিতেই এবার ইন্ডিগোর বিমান সংস্থাকে আইনি নোটিস পাঠালেন কুণাল। 

 

নোটিসে ইন্ডিগো বিমান সংস্থাকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়া ও তাঁর উপর থেকে ৬ মাসের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়েছে। গত ২৮ জানুয়ারি ইন্ডিগোর বিমানে মুম্বই থেকে লখনউ সফর করেন কুণাল। সেই বিমানে তাঁর সফরসঙ্গী ছিলেন সাংবাদিক অর্ণব গোস্বামী। বিমানের মধ্যেই অর্ণবকে নিয়ে নানারকমের মন্তব্য করেন এই স্ট্যা্ড আপ কমেডিয়ান। সেই মন্তব্য সোস্যাশ মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই তা ভাইরাল হয়ে যায়। তারপরেই কুণালের বিমানে ওঠার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করে কের ইন্ডিগো কর্তৃপক্ষ। ওই দিনের ঘটনা পরবর্তী সময়ে ইন্ডিগো বিমানের পদক্ষেপে তিনি 'মানসিক যন্ত্রণা' পেয়েছেন বলে দাবি করেন কুণাল কামরা। এই দাবি করে ইন্ডিগো থেকে ২৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণও দাবি করেন তিনি। 

আরও পড়ুন: জামিয়ায় হামলা চালিয়েছিল আপ সমর্থক, দাবি দিল্লি বিজেপি সভাপতি মনোজের
 
আইনি নোটিসে কুণালের আইনজীবী জানিয়েছেন, "ইন্ডিগোর এই পদক্ষেপের জেরে আমার মক্কেল মানসিক যন্ত্রণার শিকার। তাঁকে দেশ ও বিদেশে শো বাতিল করতে হয়েছে। যার ক্ষতিপূরণ বাবদ ২৫ লক্ষ টাকা দাবি করা হচ্ছে।"

আরও পড়ুন: ৪৭ বছরের সম্পর্কে পড়ল ইতি, ইউরোপিয় ইউনিয়ন ছেড়ে অবশেষে বিদায় ব্রিটেনের

তার উপর আরোপ করা নিষেধাজ্ঞা যাতে তুলে নেওয়া হয় নোটিসে সেই কথাও লিখেছেন কুণাল। বলেছেন ইন্ডিগো কর্তৃপক্ষকে ক্ষমা চাইতেও। পাশাপাশি সেদিনের ঘটনার জন্য তিনি যে বিমানকর্মী এবং পাইলটের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছিলেন সেই কথাও উল্লেখ করেছেন এই স্ট্যান্ডআপ  কমেডিয়ান। 

এদিকে গত মঙ্গলবারের ঘটনায় কুণালের উপর নিষেধাজ্ঞা জারির জন্য বিমান সংস্থাগুলির কাছে আবেদন জানান খোদ অসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী হরদীপ পুরী। তার পরেই ইন্ডিগোর পাশাপাশি এয়ার ইন্ডিয়া, স্পাইস জেট এবং গো এয়ার কুণালের বিমানে চড়ার ব্যাপারে ছয় মাসের নিষেধাজ্ঞা জারি করে। 

এদিকে কুণালের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘটনায় বিমান সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে দ্বিচারিতার অভিযোগ তুলেছেন নেটিজেনরা। ঘটনার দু'দিন বাদে গত বৃহস্পতিবার কুণালের পাশেই দাঁড়ান ওই বিমানের পাইলট। জানিয়ে দেন, কুণালের আচরণে কোনো উচ্ছৃঙ্খলতা ছিল না। ইন্ডিগো কর্তৃপক্ষেপ কাছে লেখা চিঠিতে পাইলট সংস্থার কাছে প্রশ্ন তোলেন, কেন কুণালের যাত্রা নিষিদ্ধ করার আগে তাঁর সঙ্গে আলোচনা করা হল না। ইন্ডিগো কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নেওয়ায় তিনি অত্যন্ত দুঃখিত বলেও প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন ওই পাইলট।