করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে দেশব্যাপী লকডাউন একেবারে ব্যর্থ বলে জানালেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। কোভিড সংকট মোকাবিলার কৌশল নিয়ে মঙ্গলবার এক অনলাইন সাংবাদিক বৈঠকে মোদী সরকারের তীব্র সমালোচনা করলেন তিনি।

এদিন রাহুল বলেন, 'প্রধানমন্ত্রী এবং তাঁর সব উপদেষ্টারা দাবি করেছিলেন (লকডাউনের ফলে) করোনভাইরাস মামলার পরিমাণ নেমে আসবে, তবে তা হয়নি।' তিনি বলেন ভারতে লকডাউনে থেকে যে প্রত্যাশা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সঙ্গে গোটা ভারতবাসী করেছিল, তা হয়নি। ২১ দিনের করোনা যুদ্ধ জেতার কথা বলেছিলেন, তা হয়নি ৬০ দিনেও। লকডাউন শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েও মোদী সরকারের নিন্দা করেছেন তিনি। বলেন, 'বিশ্বের ভারতই একমাত্র দেশ, যারা ভাইরাসটির বিস্তার যখন তীব্র হচ্ছে, তখন লকডাউন অপসারণ করছে'।

বস্তুত লকডাউনের চতুর্থ দফায় বিধি নিষেধ অনেকটাই শিথিল করা হয়েছে। আর তারপর থেকেই প্রায় প্রতিদিনই ২৪ ঘন্টায় সর্বোচ্চ নতুন রোগীর সংখ্যার রেকর্ড হয়ে চলেছে দেশে। সোমবারও নতুন প্রায় ৭০০০ করোনা রোগীর সন্ধান পাওয়ায় এই রেকর্ড হয়েছে। মঙ্গলবার সকালের মধ্যে ভারতে করোনা রোগীর সংখ্যা ১ লক্ষ ৪৫ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে, আর মৃতের সংখ্যা এখন ৪,১৬৭। ২ মাস আগে লকডাউনের শুরুতে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৬০০-র মতো। কিন্তু, তারপরও সোমবার থেকে অসামরিক বিমান চলাচল ফের শুরু করা হচ্ছে। চালু হয়েছে রেল ও সড়ক যোগাযোগ-ও।

এই পরিস্থিতিতে কংগ্রেসের প্রাক্তন সর্বভারতীয় সভাপতি বলেছেন, 'আমি প্রধানমন্ত্রী মোদীকে জিজ্ঞাসা করতে চাই, সরকারের কৌশল কী? তিনি আরও বলেন, 'লকডাউন যখন ব্যর্থ হয়েছে, আমাদের সরকারের পরবর্তী কৌশলটি জানতে হবে। কেন্দ্রকে অবশ্যই তার প্ল্যান বি প্রকাশ করতে হবে। তারা কীভাবে এই রোগ প্রতিরোধ করার কথা ভাবছে। পরিযায়ী শ্রমিকদের কীভাবে সহায়তা করার কথা ভাবছে, এমএসএমইগুলিকে কীভাবে সমর্থন করার বিষয়ে চিন্তাভাবনা করছে'।

একই সঙ্গে তিনি দাবি করেছেন, কংগ্রেস শাসিত রাজ্যগুলিকে সহায়তা করছে না কেন্দ্র। সরকার আর্থিক প্যাকেজে জিডিপির ১০ শতাংশ দেওয়ার কথা বললেও আদতে নগদ দিচ্ছেন ১ শতাংশ-ও নয়। কিন্তু তাঁদের সরকার নগদই দিচ্ছে। রাহুল গান্ধী বলেন, 'কংগ্রেস কিছু রাজ্যে সরকার চালাচ্ছে। আমরা এই সংকটে টিকে থাকার জন্য দরিদ্রদের হাতে সরাসরি নগদ অর্থ দিচ্ছি। (কিন্তু) আমরা কেন্দ্রীয় সরকারের সমর্থন পাচ্ছি না'। তিনি আরও বলেন এই সংকটের সময়ে কেন্দ্রের সহায়তা ছাড়া রাজ্যে সরকার পরিচালনা করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, কংগ্রেস যে যে রাজ্যে সরকার চালাচ্ছে, তাদের কৌশল একেবারে পরিষ্কার। অভাবীদের নগদ সাহায্য করা হচ্ছে, তাদের খাদ্য সহায়তা দেওয়া হচ্ছে, পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য আলাদা ব্যবস্থাপনা করা হচ্ছে। করোনা পরীক্ষার সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। কিন্তু, কেন্দ্রের সহায়তা ছাড়া কোনও রাজ্যের পক্ষেই এককভাবে এই কৌশল কাজে লাগানো সম্ভব নয়। কংগ্রেস রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা জানিয়েছেন, তাঁদের একা একাই লড়তে হচ্ছে।