শুক্রবার সকালের একটি খবর নিয়েই এখন সরগরম দেশের রাজনীতি। কানপুরের কুখ্যাত গ্যাংস্টার বিকাশ দুবের এনকাউন্টার নিয়ে একের পর এক প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে বিরোধী শিবির। উত্তরপ্রদেশের রাজনীতি এখন সরগরম এই এনকাউন্টার নিয়ে। আর এসবের মাঝেই আনলক ভারতে ফের একবার লকডাউনের পথে হাঁটলেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। 

 পশ্চিমবঙ্গে যেমন বৃহস্পতিবার থেকে কেবল কন্টেনমেন্ট জোনে লকডাউন শুরু হয়েছে, উত্তরপ্রদেশে কিন্তু তেমনটা হচ্ছে  না। যোগী রাজ্যে টানা ৩ দিন সম্পূর্ণ লকডাউনের পথে হাঁটল প্রশাসন। মাছি না গলা লকডাউন চাইছে যোগী আদিত্যনাথের সরকার। উত্তরপ্রদেশ জুড়ে হুহু করে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। সেকথা মাথায় রেখেই এই পদক্ষেপ। এই ৩ দিনে কার্যত স্তব্ধ থাকবে গোটা উত্তরপ্রদেশ।

আরও পড়ুন: দেশে করোনায় মৃতের ৫৩ শতাংশই ষাটোর্দ্ধ, কেন্দ্র বলছে বিশ্বের মধ্যে পরিস্থিতি সবচেয়ে ভাল

শুক্রবার রাত ১০টা থেকে লকডাউন বলবৎ হবে উত্তরপ্রদেশ জুড়ে। যা বজায় থাকবে সোমবার ভোর ৫টা পর্যন্ত। অর্থাৎ সপ্তাহন্তের ছুটি এবার বাড়িতেই কাটবে উত্তরপ্রদেশের শহর থেকে গ্রাম, সব জায়গার মানুষের। সরকারের তরফে জানানো হয়েছে এই সময়ে কিছু প্রয়োজন হলে তা বাড়ির দরজায় পৌঁছে দেবে প্রশাসন। কিন্তু কেউ গ্রহণযোগ্য কারণ ছাড়া বাড়ি থেকে বার হতে পারবেন না।

আরও পড়ুন: বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে কম দামে রেমডেসিভির মিলছে এদেশে, সিপরেমির দাম এক হাজার টাকা কমাল সিপলা

বাস, গাড়ি, দোকানপাট সবই বন্ধ থাকবে লকডাউনের ৫৫ ঘণ্টা । খোলা থাকবে কেবল পেট্রোল পাম্প ও হাসপাতাল। ট্রেন ও বিমানপরিবহন অবশ্য চালু থাকছে। ট্রেন বা বিমানের যাত্রীদের জন্য কিছু বাস রাখা হবে। এছাড়া জিনিসপত্র নিয়ে যাওয়া ও নিয়ে আসা চলবে। যেখানে যেখানে নির্মাণকার্য চলছে সেখানে তা চলবে। 

দেশে আনলক ২ শুরু হয়েছে, ফের খুলতে শুরু করেছে সবকিছু। সেইসঙ্গে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ। ইতিমধ্যে বিশ্বে করোনা আক্রান্ত দেশ হিসাবে ৩ নম্বরে উঠে এসেছে ভারত। আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৮ লক্ষের কাছাকাছি। ফলে রাজ্যগুলি এক এক করে ফের লকডাউনের পথ নিচ্ছে। যোগী রাজ্যে ইতিমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ হাজার পেরিয়েছে। যদিও এরমধ্যে ২০ হাজার সুস্থ হয়ে উঠেছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা মুক্ত হয়েছেন ৮৪৫ জন। তবে পরিস্থিতি যাতে আয়ত্বের বাইরে না যায় সেই কারণে টানা ৩ দিন কঠোর লকডাউনের পথে হাঁটল যোগী রাজ্য।