শুরুর দিন থেকেই বিতর্ক তাঁদের পিছনে। এবারের লোকসভা নির্বাচনে তাঁদের মান ঘোষণার দিন থেকে শুরু করে সংসদে গিয়ে ছবি তোলা পর্যন্ত নানা সময়ে নানা কারণে সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলিং-এর শিকার হতে হয়েছে সাংসদ মিমি চক্রবর্তী ও নুসরত জাহানকে। কখনও হাতে গ্লাবস পরে সাধারণ মানুষের সঙ্গে হাত মেলানো কখনও আবার সংসদের পোশাক পরা নিয়ে বারবার নীতি পুলিশি চালিয়েছেন নেটিজেনরা। 

কিন্তু সংসদের প্রথম দিনেই তাঁদের দেখা গেল না এই দুই তারকা সাংসদকে। গতকাল ছিল সংসদের প্রথম অধিবেশন। এদিন অধিবেশন শুরুর আগে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সংবাদমাধ্যমের সামনে জানান,  সরকারের পক্ষে বা বিপক্ষে না গিয়ে সকলকে একজোট হয়ে কাজ করতে হবে। তিনি এও বলেন যে গণতান্ত্রিক দেশে বিরোধীদেরও সমান অধিকার রয়েছে। আর দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কাজা বিরোধীদেরও সমান সহযোগীতা কাম্য। প্রসঙ্গত, এবারের লোকসভায় রয়েছে এক ঝাঁক নতুন মুখ। প্রধানমন্ত্রী এই প্রসঙ্গে বলেন, অনেক নতুন সদস্যদের সঙ্গে আলাপ করার সুযোগ থাকবে। নতুন সদস্যরা নতুন প্রণশক্তি সঞ্চার করবেও বলে মনে করেন তিনি।

কিন্তু সংসদে প্রথম দিেনই দুই নায়িকা সাংসদের না যাওয়া নিয়েও উঠছে প্রশ্ন। নিয়ম হল অধিবেশন শুরুর আগে প্রত্যেক সাংসদকেই শপথ নিতে হয়। সেইমতো সকল সাংসদের পাশাপাশি এরাজ্যের সাংসদেরাও এদিন শপথবাক্য পাঠ করেছেন। কিন্তু নেই শুধু দুই তারকা সাংসদ। দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, আগামী ২৫ জুন তাঁরা শপথ নেবেন। প্রসঙ্গত আগামী ১৯ জুন বিয়ে অভিনেত্রী সাংসদ নুসরতের। এখন তাই ডেস্টিনেশন ওয়েডিং নিয়েই ব্যস্ত তিনি। তবে মিমি চক্রবর্তী ঠিক কী কারণে আসতে পারেন নি সেই বিষয়ে কিছুই জানা যায়নি।