রাজ্যসভায় কৃষি বিল পাশ হওয়ার পরই মোদী সরকার সোমবার গমের নূন্যতম সহায়কমূল্য বেঁধে দিয়েছে। প্রতি কুইন্টাল প্রতি গমে সাহায়কমূল্য ৫০ টাকা বাড়িয়ে করা হয়েছে ১৯৭৫ টাকা। ২০১৩-১৪ সালের তুলনায় যা ৪১ শতাংশ বেশি বলেই দাবি করেছে কৃষি মন্ত্রক। শুধু গম নয় আরও ৬টি রবি শস্যের সহায়ক মূল্যও বেঁধে দিয়েছে প্রশাসন।  লোকসভায় সেই ঘোষণা করেছেন কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছে কৃষি বিলেগুলিতে দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কৃষকদের স্বার্থ রক্ষা আর জমির মালিকানার পর্যাপ্ত সুরক্ষা দেওয়াই সরকারের প্রধান কাজ। 

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার অর্থনৈতিক বিষয়ক কমিটি রবি শস্যের নূন্যতম সহায়ক মূল্য বৃদ্ধির অনুমোদন দিয়েছে। স্বামীনাথন কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী এমএসপি বৃদ্ধি করা হয়েছে। তৈলবীজ উৎপাদনে আত্মনির্ভর হওয়ার কারণে তুলনামূলকভাবে এটিতে বেশি এমএসপি নির্ধারণ করা হয়েছে। এমএসপিতে সর্বাধিক বৃদ্ধি হয়েছে ডাল। প্রতি কুইন্টালে ৩০০ টাকা এমএসপি বাড়ানো হয়েছে। তারপরেই রয়েছে ছোলা, রেপসিড আর সরিষা। কুইন্টার প্রতি ২২৫ বাড়ান হয়েছে নূন্যতম সহায়ক মূল্য। যব আর গমের ক্ষেত্রে বাড়ান হয়েছে ৫০ টাকা। কৃষকদের সুবিধের জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান হয়েছে। 

ধানের ক্ষেত্রে সাহায়ক মূল্য ৪৩ শতাংশ বাড়িয়ে করা হয়েছে ১৮৬৪ শতাংশ। ২০১৩-১৪ সালের তুলনায় মুসুর ডালের ক্ষেত্রে সহায়ক মূল্য ৭৩ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ৫১০০ টাকা। কলাইয়ে ডালের ক্ষেত্রে ৬০ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ৭১৯৬ টাকা। অড়হর ডালের ক্ষেত্রে ৪০ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ৬০০০ টাকা। সরষের ক্ষেত্রে সহায়ক মূল্য বাড়ানো হয়েছে ৫২ শতাংশ। কৃষকরা পাবেন ৪৬৫০ টাকা। 


কৃষি বিল নিয়ে বিরোধীদের প্রবল বাধার সম্মুখীন হতে হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারকে। পাশাপাশি পঞ্জব, হরিয়ানাসহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে কৃষকরা বিল প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে আন্দোলন করছেন। এই পরিস্থিতি কেন্দ্রীয় সরকার বারবারই কৃষকদের পাশে থাকার বার্তা দিচ্ছে। এদিনও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছেন এই বিল পাশ হওয়ার ফলে কৃষকদের ক্ষমতায়নের পথ প্রসস্ত হবে। লোকসভায় এদিন কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর বলেন, নূন্যতম সহায়ক মূল্য আগেই কৃষকদের কাছে দেওয়া ছিল, এখন তা কার্যকর হয়েছে। আগামী দিনেও এই সিদ্ধান্ত কার্যকর থাকবে বলে আশ্বস্ত করেছেন। পাশাপাশি সরকার এতদিন যেভাবে ফসল সংগ্রহ করত আগামী দিনেও ঠিক সেইভাবেই ফসল সংগ্রহ করবে বলে জানিয়েছেন তিনি। কৃষকদের পারিশ্রমিক বৃদ্ধির জন্যই সহয়াক মূল্য বাড়ানো হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।