৭৩ তম স্বাধীনতা দিবসে দেশবাসীর উদ্দেশে একের পর এক ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। যার মধ্যে প্রতিরক্ষা খাতে সিডিএস, দেশ জুড়ে জল সমস্যা দূর করার ক্ষেত্রে জল সংরক্ষণের ওপর জোর দিতে জল জীবন মিশন প্রকল্পের ঘোষণা করেন তিনি। পাশাপাশি এদিন তিনি দেশের জনবিস্ফোরণ নিয়েও বক্তব্য রাখেন। ভারতবর্ষে বাড়তে থাকা জনসংখ্যার বিরুদ্ধে কীভাবে লাগাম টানা যায়, সেই বিষয়টি নিয়েও আলোকপাত করেন প্রধানমন্ত্রী। 

প্রধানমন্ত্রীর জানিয়েছেন, জনবিস্ফোরণে লাগাম টানতে সবথেকে বেশি যা প্রয়োজন, তা হল জনসচেতনতা। ক্রমাগত জনবিস্ফোরণের ফলে কেবলমাত্র এই প্রজন্মই নয়, ভবিষ্যত প্রজন্মও নানান সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি। আর সেইকারণেই সন্তানের জন্ম দেওয়ার আগে অভিভাবকদের ভাবা উচিত, সেই সন্তানকে সুষ্ঠু ভবিষ্যত তাঁরা প্রদান করতে পারবেন কিনা। 

নতুন রূপে ভারত, লালকেল্লা থেকে ২৪ ধাপ পরিকল্পনার ঘোষণা মোদীর

জল সমস্যা দূর করতে নয়া প্রকল্প 'জল জীবন মিশন', ব্যয় হবে প্রায় সাড়ে ৩ লক্ষ কোটি টাকা

চিনকে অনুসরণ করে ভারতে এক সময়ে যে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ প্রোগ্রাম শুরু হয়েছিল, ভারত কিন্তু সেভাবে কার্যকর করে উঠতে পারেনি। ভারতের উন্নতির পথে এখন এক বড় সমস্যা ১৩০ কোটি জনসংখ্যা। বিভিন্ন বিশেষজ্ঞ মহলের দাবি, ২০৩০ সালের মধ্যে ভারতের জনসংখ্যা ১৫০ কোটিতে পৌঁছে যাবে। এদিন লালকেল্লা থেকে মোদী জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের ডাক দিয়ে বলেন শিশুর জন্ম দেওয়ার আগে প্রত্যেকে ভাবতে হবে, যে সেই শিশুকে স্বাবলম্বী করার মতো উপাদান আপনার কাছে রয়েছে কিনা , শুধু সমাজ বা সরকারের ভরসায় শিশুর ভবিষ্যতকে ছেড়ে দিলে হবে না। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ দেশভক্তির সমতুল্য বলেও দাবি করেন মোদী।