এবার বোধহয় পাইথনের তাজমহল দেখার সাধ হয়েছে। শনিবার সকালে তাজমহলের পশ্চিম দিকের  পার্কিং লটের সামনে একটা নয় ফুটের পাইথন দেখতে পাওয়া যায়। পাইথনটিকে  প্রথম দেখেন নির্মীয়মাণ কর্মী। তিনি আর একটু হলেই  পাইথনের ওপর পা দিয়ে দিচ্ছেলন। হঠাৎ করে দেখতে পেয়ে তিনি  ভয় পেয়ে যান। খবরটা প্রকাশ পেতেই চাঞ্চল্য ছড়ায়। 

শনিবার একদম সকালের দিকেই পাইথনকে পার্কিং লটের সামনে দেখতে পাওয়া যায়। সেই সময় তাজমহলের সামনে দর্শণার্থীদের তেমন একটা ভিড় ছিল না। তবে শরণার্থীরা তাজমহল  ছেড়ে পাইথনকে দেখতে ভিড় জমায়। কর্তব্যরত  পুলিশ  উৎসুক জনতাকে দূরে রাখতে সক্ষম হন। পাইথনকে দেখতে পাওয়ার পরেই ওয়াইল্ডলাইফ এসওএসকে খবর দেওয়া হয়। সেখান থেকে একটি বিশেষজ্ঞ দল এসে পাইথনটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যায় বলে জানা গিয়েছে। পাইথনটিকে তার জন্য উপযুক্ত জায়গায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে সংস্থাটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। 

আগ্রার সাব ইন্সপেক্টর অশোক কুমার বলেন, নির্মীয়মাণ কর্মীরা কয়েকদিনের জন্য বাড়ি গিয়েছিলেন।  তাঁরা বাড়ি ফিরে হঠাৎ করে পাইথনটিকে দেখতে পান। একজন কর্মী ভুল করে পাইথনের ওপর পা দিতে যাচ্ছিলেন। বরাত জোরে বেঁচে যান। ওই কর্মীরাই আমাদের সঙ্গে যোগাযোহ করেন। আমরা বনদপ্তরের সঙ্গে যোগাযোগ করি। কোনও দুর্ঘটনা ঘটার আগেই বনদপ্তর পাইথনটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়।  জানা গিয়েছে ওয়াইল্ড লাইফ এসওএস নামক সংস্থা পাইথনটিকে উদ্ধার করে নিয়ে গিয়েছে। ওয়াইল্ডলাইফ এসওএসের সহ প্রতিষ্ঠাতা কার্তিক সত্যনারায়ণ জানিয়েছেন, পাইথনকে উদ্ধার করা মোটেই সহজ কাজ ছিল না। বিশেষ করে, ওই ভিড় এলাকা থেকে পাইথনতে উদ্ধার করা। তবে কর্তৃপক্ষ আমাদের খুব সাহায্য করেছে। আমাদের কাজে ওই ভিড় যাতে কোনও ব্যাঘাত হানতে না পারে, সেই বিষয়ে যথেষ্ট চেষ্টা করেছে।