হিংসা-ধ্বস্ত উত্তর-পূর্ব দিল্লির পরিস্থিতি এখন একেবারে 'নিয়ন্ত্রণে' এবং লোকজন-ও সন্তুষ্ট। পুলিশ তাদের কাজ করছে এবং সজাগ রয়েছে। বুধবার প্রথমে দিল্লি পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক এবং পরে ক্ষতিগ্রস্থ বেশ কয়েকটি এলাকা পরিদর্শন করার পর এই কথা বলেই আশ্বস্ত করলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। এদিন, জাফরাবাদ ও মৌজপুর, যেখানে একেবারে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি, সেখানকার স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গেও মতবিনিময় করতে দেখা যায় অজিত ডোভাল-কে।

আরও পড়়ুন - অবশেষে মুখ খুললেন প্রধানমন্ত্রী, দিল্লিতে শান্তি ফেরাতে দিলেন ট্যুইট বার্তা

সাংবাদিক সঙ্গে কথা বলার সময়ে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা দাবি করেন, মানুষের মধ্যে ঐক্যের অনুভূতি রয়েছে, কোনো শত্রুতা নেই। কয়েকজন অপরাধী হিংসতা ছড়িয়ে দিচ্ছে। বাসিন্দারাই তাদের বিচ্ছিন্ন করার চেষ্টা করছেন। পুলিশ এখানে রয়েছে এবং তার কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর আদেশ অনুসারেই আমরা এখানে এসেছি'। এরপরই তিনি বলেন, 'ইনশআল্লা ইহাঁ বিলকুল আমন হোগা', অর্থাৎ ইনশআল্লা, এখানে শান্তি থাকবে।

মঙ্গলবার গভীর রাতে দিল্লিতে আসেন অজিত ডোভাল। তখনই একবার দিল্লি পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাত করেন তিনি। তারপর, এদিন সিলামপুর-এ উত্তর-পূর্ব দিল্লির জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে দিল্লি পুলিশের শীর্ষ কর্তাদের সঙ্গে ৩০ মিনিটের বেশি সময় ধরে একটি বৈঠক করেন তিনি। তারপর তাঁকে দেখা যায়, নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে নিয়ে হিংসায় ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলিতে পরিদর্শনে যেতে।

আরও পড়ুন - অগ্নিগর্ভ দিল্লিতেও অদম্য কপিল, দিনভর বিজেপি নেতার টুইটে উস্কানির বন্যা

প্রথমেই তিনি যান মৌজপুর এলাকায়। পুলিশের কয়েকজন কর্তাও তাঁর সঙ্গে ছিলেন। কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বাতিলের পর যেমন তাঁকে স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে এগিয়ে গিয়ে গিয়ে কথা বলতে দেখা গিয়েছিল, উত্তর পূর্ব দিল্লির হিংসা আক্রান্ত এলাকাগুলিতেও এদিন তাঁকে সেই কাজই করতে দেখা গেল। প্রায় বাড়ি  বাড়ি গিয়ে বাসিন্দাদের উদ্বেগ, অভিযোগ শুনলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা। তাদের অভাব অভিযোগ শুনে পুলিশকে প্রয়োজন মতো ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশও দেন তিনি।

তাঁকে দেখে দ্বিধা কাটিয়ে এগিয়ে এলেন অনেকেই। তাঁদের ভয় ভীতির কথা জানালেন। এক বাসিন্দা বললেন, ডোভালের উপস্থিতি তাঁদের মনোবল বাড়িয়ে দিয়েছে। এক বৃদ্ধা মহিলা বললেন, রাস্তায় যা চলছে তাতে তাঁর হার্টফেল হওয়ার জোগার। জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা তাঁকে শুধু নিরাপত্তার আশ্বাসই দিলেন না, সেই সঙ্গে বললেন, সদ্ভাবের পরিবেশ বজায় রাখতে। এই দেশে আমাদের সবাই একসঙ্গে থাকব। একসঙ্গে মিলে দেশকে আগে নিয়ে য়েতে হবে।

আরও পড়ুন - 'ভারতে থাকা ২০ কোটি মুসলিম ওদের লক্ষ্য়', ঝোঁপ বুঝে কোপ মারলেন ইমরান খান

তিনি আরও বলেন, যারা দেশকে ভালবাসে, তারা সমাজকে, তাদের প্রতিবেশীকেও ভালবাসে। প্রত্যেকেরই ভালবাসা সম্প্রীতি নিয়ে থাকা উচিত। একে অপরের সমস্যা না বাড়িয়ে বরং সমাধান করার চেষ্টা করা উচিত।  এটাই সকলের জন্য তাঁর বার্তা। পরিদর্শনের পর পরিস্থিতি নিয়ে রিপোর্ট করতে অজিত ডোভাল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ-এর কার্যালয়ে গিয়েছেন।