সময়টা ভাল যাচ্ছে আম আদমি পার্টির সুপ্রিমো অরবিন্দ কেজরিওয়ালের। দিল্লি বিধানসভা ভোটে বিজেপিকে ঝাড়ু দিয়ে সাফ করে দিয়েছেন আপ প্রধান। ৭০ আসনের বিধানসভায় একাই তাঁর দল জিতেছে ৬২টি আসন। নয়া দিল্লি কেন্দ্র থেকে বিপুল ভোটে জিতে কেজরি নিজে দিল্লি বিধানসভা ভোটে হ্যাটট্রিক করেছেন। এবার তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর আসনে বসতে চলেছেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল।

আরও পড়ুন: কেজরির শপথে থাকবেন কেবল দিল্লিবাসী, মমতার উপস্থিতি নিয়ে বাড়ছে ধোঁয়াশা

এদিকে আপের দিল্লি জয়ের পরেই ক্রমে বাড়তে শুরু করেছে দলের সদস্য সংখ্যা। আপের দাবি, বিধানসভা ভোটে জয়ের পর গত  ২৪ ঘণ্টায় অন্তত ১০ লক্ষ মানুষ তাদের দলে যোগ দিয়েছেন। আম আদমি পার্টির তরফে একটি ট্যুইটের মাধ্যমে এই তথ্য জানানো হয়েছে। আপের উন্নয়নের রাজনীতির জন্যই এই জনসমর্থন বলে মনে করছে দলের শীর্ষনেতৃত্ব।

 

তবে আম আদমি পার্টিতে যোগ দেওয়ার ক্ষেত্রে অবশ্য বিজেপির সেই 'মিস কল পদ্ধতি'তেই ভরসা রেখেছেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। দিল্লি জয়ের পর রাজধানীর মানুষকে ধন্যবাদ জানাতে গিয়ে একটি নম্বর প্রচার করেছিলেন কেজরিওয়াল। বলা হয়েছিল, দেশকে নতুনভাবে গড়ে তুলতে আম আদমি পার্টিতে যোগ দিন এই নম্বরে মিস কল দিয়ে। আর সেই পদ্ধতিতেই ১০ লক্ষ মানুষ আপে নাম লিখিয়েছেন। 

 

 

আরও পড়ুন: চাকরিতে সংরক্ষণের দাবিতে কর্ণাটকে বনধ, তিরুপতি-ম্যাঙ্গালুরু বাসে পাথর সমর্থকদের

গত লোকসভা ভোটে ৭টি আসনের একটিতেও জিততে পারেনি আম আদমি পার্টি। তার আট মাসের মধ্যে বিধানসভা নির্বাচনে আপের এই বিপুল সাফল্য তাক লাগিয়ে দিয়েছে সকলকেই। গত ৫ বছরে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের উন্নয়নমূলক কাজকেই কৃতীত্ব দিচ্ছেন সকলে। লোকসভা ভোটে জিতে বিভাজনের রাজনীতি করছে বিজেপি। দিল্লি বিধানসভ ভোটেও সেই ত্রাসই ব্যবহার করতে চেয়েছিল দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। কিন্তু সেদিকে পা না বাড়িয়ে রাজধানীবাসী উন্নয়নকেই বেছে নিয়েছেন। কেজরিকে তাঁদের উজাড় করে দেওয়া সমর্থন দেখে এমনটাই মনে করছেন ওয়াকিবহাল মহল। আর তাই বিপুল জনসমর্থন নিয়ে আপ ক্ষমতায় ফিরতেই দলে যোগ দেওয়ার হিড়িক লেগেছে। আপ নেতারাও নতুন সদস্যদের স্বাগত জানাতে শুরু করেছেন।