বুধবারই আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় শর্ত সাপেক্ষে জামিন পেয়েছেন পি চিদম্বরম।  ১০৬ দিন তিহার জেলে কাটানোর পর বুধবার রাত রাত ৮ টায় অনেকদিন বাদে কারাগারের বাইরে পা রাখেন তিনি। বৃহস্পতিবারই লোকসবার শীতকালীন অধিবেশনে যোগ দেন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। তারপর সাংবাদিক সম্মেলন করে তিনি জানান, জেল থেকে বেরিয়ে মুক্তির শ্বাস নিয়েছেন ঠিকই, কিন্তু তারপরই তাঁর মন কেঁদে ওঠে ৭৫ লক্ষ 'বন্দি'র জন্য।

এই ৭৫ লক্ষ বন্দি বলতে তিনি কাশ্মীর উপত্যকার ৭৫ লক্ষ মানুষের কথা বলেছেন। তিনি জানান, গত গত ৪ অগাস্ট থেকে এই ৭৫ লক্ষ মানুষের মৌলিক স্বাধীনতাকে অস্বীকার করেছে মোদী সরকার। নিজে মুক্তি পেলেও তাঁদের জন্য চিন্তিত তিনি। জেল থেকে বেরিয়েই তিনি তাঁদের মুক্তির জন্যই প্রার্থনা করেছেন।  

আরও পড়ুন - মুক্তি পেয়েই ফর্মে চিদম্বরম, 'সর্বনাশা' ভুল নিয়ে ছিন্নভিন্ন করলেন মোদী সরকারকে

তিনি আরও বলেন, বিশেষ করে তিনি চিন্তিত কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতাদের নিয়ে। তাঁদের বিনা অভিযোগেই আটকে রাখা হয়েছে। তিনি আরও বলেন অবস্থা এমন জায়গায় পৌঁছেছে যে স্বাধীনতা রক্ষা করতে গেলে এখন স্বাধীনতার জন্য লড়াই করতে হবে।

এদিন অবশ্য চিদম্বরম মোদী সরকারকে মূল আক্রমণ করেছেন অর্থনীতি নিয়ে। তাঁর দাবি নোটবন্দী, আর্থিক সংস্থাগুলির উপর নিয়ন্ত্রণ নিয়ে বাড়াবাড়ি এবং 'কর সন্ত্রাস'-এর মতো মোদী সরকারের একের পর এক সরকার একের পর এক 'সর্বনাশা' ভুলের জন্যই ভারতের অর্থনৈতিক অবস্থা এই জায়গায় পৌঁছেছে। কিন্তু তারপরেও মোদী সরকার এই সব ভুলকে অস্বীকার করে যাচ্ছে। জেদ ধরে বসে রয়েছে।

আরও পড়ুন - সুপ্রিম কোর্টে জামিন পেলেন পি চিদম্বরম, তিন মাস হাজতবাসের পর মুক্তি

বিশ্বব্যপী লগ্নীকারীরা কিন্তু অর্থনীতির বিভিন্ন পরিসংখ্য়ানে নজর রাখছেন। আর সব পরিসংখ্য়ানই বলছে ভারতীয় অর্থনীতি ক্রমে ডুবে যাচ্ছে। এছাড়া পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর মন্তব্য নিয়েও তিনি কটাক্ষ করেন।

আরও পড়ুন - শুধু-শুধুই কাঁচা ঘুম ভাঙল রাষ্ট্রপতির, 'ব্যথিত' জেলবন্দি প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী