আজ থেকে ঠিক ৪৫ বছর আগে এই দিনটিতেই রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয়েছিল দেশে। যাকে ভারতের গণতন্ত্রে কালো অধ্যায় হিসেবে চিহ্নিত করেছেন বিশেষজ্ঞরা। ১৯৭৫ সালের আগেই রাষ্ট্র স্বয়ং সেবক সংঘের কর্মী হিসেবে রাজনীতির আঙিনায় পা রেখেছিলেন বর্তমান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। জরুরি অবস্থা বিরোধী একাধিক আন্দোলনে প্রথম সারিতে দাঁড়িয়ে নেতৃত্ব দিতে দেখা গেছে তাঁকে। বৃহস্পতিবার জরুরি অবস্থার  ৪৫ বছর পূর্তী উপলক্ষ্যে সেই ভয়ঙ্কর দিন গুলিরে কথা স্মরণ করেই সোশ্যায় মিডিয়া বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

সোশ্যাল মিডিয়ায় দেওয়া বার্তায় প্রধানমন্ত্রী লিখেছেন, ৪৫ বছর আগে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছিল দেশে। গণতন্ত্রকে বাঁচাতে সেইসময় যেসব মানুষ লড়াই করেছিলেন তাঁদের তিনি সম্মান করেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর বার্তায় আরও বলেছেন, সেই লড়াইয়ে অংশগ্রহণকারীদের স্বার্থত্যাগের কথা দেশের মানুষ কোনও দিনও ভুলবে না। হিন্দিতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দেন প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে অল ইন্ডিয়া রেডিওতে তাঁর মাসিক অনুষ্ঠান মন কি বাত-এর একটি অংশও জুড়ে দিয়েছেন তিনি। যেখানে তিনি জরুরি অবস্থার সময়কার কথা তাঁর অনুষ্ঠানে তুলে ধরেছিলেন। গতবছরই এই মন কি বাতের সেই অংশটি সম্প্রচারিত হয়। 

প্রধানমন্ত্রীর এই সোশ্যাল মিডিয়ায় এই বার্তা দেওয়ার আগেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ সোশ্যাল মিডিয়া কংগ্রেসকে রীতিমত কটাক্ষ করেন জরুরি অবস্থা নিয়ে।  নাম না করে সমালোচনায় সরব হন গান্ধী পরিবারে বিরুদ্ধে। গতকাল জেপি নাড্ডাও কংগ্রেসের বিরুদ্ধে সরব হন। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ, লকডাউন, লাদাখ সীমান্ত সমস্যা নিয়ে কংগ্রেসের তোলা একের পর এক প্রশ্ন নিয়েই তিনি খোঁটা দেন কংগ্রসকে। 

'ড্রাগনের চোখে আগুন' কতটা দেখলেন সেনা প্রধান, বৈঠকে দিতে পারেন তার পূর্ণ বিবরণ ...

অমিত শাহর নিশানা আবারও গান্ধী পরিবার, এবার কংগ্রেসকে 'জরুরি অবস্থা' নিয়ে তোপ ...


 

জরুরি অবস্থায় সামনের সারিতে থেকে লড়াই করেছিল আরএসএস, অস্বস্তিতে ফেলেছিল ইন্দিরা সরকারকে ...