দেশে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। তবে কেন্দ্রীয় সরকারের পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে ভারতের মোট ১০টি রাজ্যেই রয়েছে মোট আক্রান্তের ৮- শতাংশ। এই পরিস্থিতিতে এই ১০ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠকে বসলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মহারাষ্ট্র, অন্ধপ্রদেশ, বিহার, গুজরাত, উত্তরপ্রদেশ, তেলঙ্গানা, পঞ্জাব, তামিলনাড়ু, কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রীরা। এই দশটি রাজ্যের বর্তমান কোভিড পরিস্থিতি সবচেয়ে উদ্বেগজনক।

 

 

এই দশটি রাজ্যের মধ্যে মহারাষ্ট্র, কর্নাটক, অন্ধ্রপ্রদেশ, তামিলনাড়ু আর উত্তরপ্রদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় সব থেকে বেশি কোভিড আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে। এর পরেই রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ।

আরও পড়ুন: আশা জাগিয়ে কমল দৈনিক সংক্রমণ, দেশে সুস্থতার হার বেড়ে এবার ৭০ শতাংশের কাছাকাছি

দেশে করোনা সংক্রমণ  শুরু হওয়ার পর থেকে এই নিয়ে সাত বার মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক বসলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। শেষ বার জুনে এমন বৈঠক করেছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন: আমেরিকায় রেকর্ড গড়ে প্রথমবার নাগরিকত্ব ছাড়ার হিড়িক, মোহভঙ্গের জন্য কাঠগড়ায় সেই ট্রাম্প

আগস্টের শুরুতে দেশ জুড়ে তৃতীয় দফার আনলক পর্ব শুরু হয়েছে। তার মধ্যেও প্রতিদিন নতুন করে সংক্রমিত হচ্ছেন হাজার হাজার মানুষ। গত ৪ দিনে দেশে দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যাটা ৬০ হাজারের উপরে ছিল। মঙ্গলবার তা ৫৪ হাজারের নিচে নামলেও, শীঘ্র করোনা সঙ্কট কাটিয়ে ওঠার সম্ভাবনা দেখছেন না বিশেষজ্ঞরা। এমন পরিস্থিতিতে সংক্রমণ রুখতে কী কী পদক্ষেপ করা যায়, তা নিয়ে আলোচনা করতেই  ১০ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের নিয়ে এই বৈঠক ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী। আনলক তিন পর্বে মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে এটাই মোদীর প্রথম বৈঠক।

সোমবার দেশের বন্যা পরিস্থিতি পর্যালোচনার জন্য কেরল, কর্নাটক, বিহার, উত্তরপ্রদেশ, অসম আর মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গেও বৈঠক করেন মোদী। এদিন দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক ভিডিয়ো কনফারেন্সিং-এর মাধ্যমে বেলা ১১টা থেকে শুরু হয়। বৈঠকে অংশ নেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংও।