চিনের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই বার্তা দিয়ে 'স্যারেন্ডার মোদী ' নাম দিয়ে তা ট্রেন্ড করিয়েছিলেন কংগ্রস নেতা রাহুল গান্ধী। গতরবিবার রাহুলেই এই মন্তব্য যথেষ্ট জনপ্রিয়ও হয়েছিল। কিন্তু কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতির এই মন্তব্য রীতিমত আক্সিজেন যুগিয়েছে ভারতের প্রতিপক্ষ চিন ও পাকিস্তানকে। রবিবার রাহুল গান্ধীর বিরুদ্ধে এমনই গুরুতর অভিযোগ আনলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। তবে অমিত শাহ রাহুলের নাম উচ্চারণ করেননি। তিনি বলেছেন দেশের একটি বড় রাজনৈতিক দলের প্রাক্তন সভাপতির এই আচরণ ঠিক নয়। 


তিনি আরও বলনে ভারত বিরোধী জনমত সামলাতে তিনি ও তাঁর দল যথেষ্ট সক্ষম। কিন্তু এটা খুবই দুঃখজনক যখন কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি ভারত বিরোধী জনমত উস্কে দিচ্ছে। তিনি আরও বলেন তাঁর এই হ্যাসট্যাগটি পাকিস্তান ও চিন পর্যন্ত ছড়িয়ে গিয়েছে। এটা কংগ্রেস ও রাহুল গান্ধীর সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত বিষয়। দেখা গেছে প্রতিপক্ষ যা পছন্দ করে রাহুল গান্ধী সেই মতই বার্তা দেন। 

অমিত শাহ এদিন সরাসরি নিশানা করেন রাহুল গান্ধীকে। তিনি বলেন একটি একটি সংকটের সময়।  প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ সীমারেখা নিয়ে দুটি দেশের মধ্যে কথাবার্তা চলছে। এই সময় একমাস মুখ বন্ধ করে রাখা উচিৎ বলেও তিনি মন্তব্য করেন। তাঁর অভিযোগ, গত ১৫ জুন চিনা সেনাদের সঙ্গে লাদাখের গালওয়ানে সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় জওয়ানের নিহত হয়েছেন। তখন রাহুল গান্ধী একের পর এক প্রশ্ন তুলে যাচ্ছেন। কঠিন এই পরিস্থিতিতে রাহুল গান্ধী প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে চিনা ভূখণ্ড সমর্পণ করার অভিযোগ আনছেন। এই বিষয়টি নিয়ে রাহুল গান্ধী একাধিকবার সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়েছেন বলেও অভিযোগ। 

দিল্লির করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে কেন্দ্র -রাজ্য টানাপোড়েন, বাকযুদ্ধ অমিত শাহ ও সিসোদিয়ার ...

'বিশ্ব প্রত্যক্ষ করছে ভারতের পদক্ষেপ', মন কি বাত অনুষ্ঠানে লাদাখ নিয়ে মন্তব্য মোদীর ...

এদিন স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতেই অমিত শাহ টেনে আনেন ১৯৬২ সালের চিন-ভারত যুদ্ধের প্রসঙ্গ।  লাদাখ ইস্যুতে সংসদে আলোচনায় সরকার প্রস্তুত বলেও জানিয়েছেন তিনি। অমিত শাহ বলেন ৬২ সাল থেকেই বর্তমান সময় পর্যন্ত আলোচনা হবে। আলোচনা থেকে কখনই বিজেপি সরে যাচ্ছে না বলেও তিনি মন্তব্য করেন। পাশাপাশি তিনি বলেন লাদাখ ইস্যুতে ভারত কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছে। কিন্তু এই সময় চিন ও পাকিস্তানের সুবিধে করে দেবে এমন মন্তব্য  থেকে দেশের মানুষদের বিরত থাকা উচিৎ বলেও তিনি মন্তব্য করেন। 

'ভারতকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়তে'ই কি চিনের ১৬টি সেনা ছাউনি, গালওয়ানে ভারী হচ্ছে 'ড্রাগনের পায়ের ছাপ' ...
পাশাপাশি অমিত শাহ বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রণ রুখতে কেন্দ্রীয় সরকার ভালো কাজ করেছে। কিন্তু কিছু মানুষ রয়েছেন যাঁরা সবেতেই ভুল ধরেন। রাহুল গান্ধীকে তিনি পরামর্শ দিতে পারেন না। এই দায়িত্ব তাঁর দলেরও নেওয়া উচিৎ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।