দীর্ঘ যুদ্ধের অবসান হতে চলেছে বৃহস্পতিবার। আগামিকালই রাজস্থান  কংগ্রেসের বিবাদমান দুই নেতা অশোক গেহলট আর শচীন পাইলট মুখোমুখি হতে চলেছেন দলীয় বৈঠকে। শুক্রবার রাজস্থান বিধানসভার অধিবেশন শুরু হবে। তার আগে বৃহস্পতিবারই দলীয় বৈঠকে  আলোচনা সারবেন কংগ্রেস বিধায়করা। সোমবারই  রাহুল গান্ধীর বাড়িতে বৈঠকের পর শচীন পাইলট জয়পুর ফিরেছেন। কিন্তু তারপর থেকেই দলীয় সভা নিয়ে রীতিমত চুপচাপ ছিল কংগ্রেস। বুধবারই জানিয়ে দেওয়া হয় আগামিকালই সামনাসামনি হবেন গেহলট পাইলট। 

একটি সূত্র বলছে রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী আস্থা ভোটের দিকে যেতে পারেন। আর বিক্ষুদ্ধ বিধায়করা ঘরে ফেরার পর সেই আস্থাভোটে শক্তি প্রদর্শন করে স্বস্তির নিঃশ্বাস নিচে চাইছেন তিনি।

প্রিয়াঙ্কার উদ্যোগে রাহুলে বাসভবনেই শচীনের প্রত্যাবর্তন, প্রথম বৈঠকেই বাজিমাত রাগার ..

পাইলটদের নিয়ে অস্বস্তি বাড়ছে গেহলটের, ১ মাস পর জয়পুরে ফিরে শচীন জানালেন তিনি মর্মাহত ..  

কিন্তু শচীন পাইলটের ও তাঁর অনুগামী বিধায়কদের রাজস্থানে ফেরা নিয়ে কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে রয়েছেন অশোক গেহলট। যেদিন তাঁর শিবিরের বিধায়করা শচীন পাইলটদের দল থেকে বাদ দেওয়ার কথা বলেছিলেন সেদিনই রাহুল আর প্রিয়াঙ্কার মধ্য়স্থতায় তিনি ঘরে ফেরেন। তাতেই উষ্মা প্রকাশ করেছেন গেহলট শিবিরের বিধায়করা। 

যা নিয়ে এদিন অশোক গেহলট বলছেন এটা খুবই সাধারণ বিষয়। রাগ হওয়াটাই স্বাভাবিক বলে জানিয়েছেন তিনি। কিন্তু এভাবেই এগিয়ে যেতে হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। সবকিছু ভুলে যাওয়া আর ক্ষমা করার করে দিতে হবে। পাইলটের সঙ্গে তাঁর পুনর্মিলন হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

দুই রাজনীতিবিদের দ্বৈরথের সময় অশোক গেহলট, শচীন পাইলটকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেছিলেন। রাজস্থানের সরকার ফেলার চক্রী হিসেবেই চিহ্নিত করেছিলেন শচীন পাইলটকে। পাশাপাশি নিকম্মা বলেও মন্তব্য করেন। তবে সেই বিষয় নিয়ে পরবর্তীকালে মুখ খুলতে অস্বীকার করেন শচীন পাইলট। যদিও গেহলট আর পাইলটের সম্পর্ক কতটা সাবলীল হবে তাই নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। 
চিনা নাগরিকের কুকীর্তি ফাঁস, আগে গুপ্তচরবৃত্তি আর বর্তমানে হাওয়ালা চক্রের পাণ্ডা ...