অযোধ্যায় রাম মন্দিরের বর্ণাঢ্য ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের আগেই 'রাম'কে ইস্যু করে মুখ খুললেন উত্তর প্রদেশের কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। ভূমি পুজোর অনুষ্ঠানকে তিনি সমর্থন করার পাশাপাশি একটি বিবৃতিও জারি করেছেন তিনি। যেখানে ভূমি পুজোর অনুষ্ঠানকে বন্ধুত্ব, সৌভাতৃত্ব ও জাতীয় ঐক্যের সূচক হিসেবে ব্যবহার করার আর্জি জানিয়েছেন । 

মঙ্গলবার প্রিয়াঙ্কা গান্ধী সোশ্যাল মিডিয়ায় বলেন ভগবান শ্রী রাম ও দেবী সীতার আশীর্বাদে ভূমি পুজোর অনুষ্ঠান জাতীয় ঐক্য ভাতৃত্ব ও সাংস্কৃতিক মণ্ডলীর ভিত্তি হয়ে উঠতে পারে। 

আর এই বিবৃতিটিকে কংগ্রেসের রণ কৌশলের পরিবর্তত দিক হিসেবেই দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। ধর্ম নিরপেক্ষতার পাশাপাশি হিন্দুত্ববাদীদের মন জয়ের একটা চেষ্টা প্রিয়াঙ্কা গান্ধী করেছেন বলেও মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। 


রাজীব গান্ধীর আমলে রাম মন্দির ইস্যুটি গুরুত্বপূর্ণ হয়েছিল।  কিন্তু তারপর থেকে গান্ধী পরিবারের কোনও সদস্যই রামকে নিয়ে কোনও মন্তব্য করা থেকে বিরত ছিলেন। কয়েক দশক সম্ভবত প্রিয়াঙ্কা গান্ধী প্রথম, গান্ধী পরিবারের সদস্য হিসবে রামকে নিয়ে মন্তব্য করলেন। 

পাকিস্তানের মাটিতে সন্ত্রাসবাদের রূপরেখা প্রকাশ, রাষ্ট্র সংঘে আক্রমণের ঝাঁঝ বাড়াল ভারত ..


প্রিয়াঙ্কা গান্ধী তাঁর জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বলেছেন যুগ যুগ ধরে ভগবান রামের আদর্শ ও নীতি ভারতে একতার উৎস হিসেবে কাজ করছিল।  রামায়ণে রয়েছে বিশ্ব ও ভারতীয় উপমহাদেশের সভ্যতার এই অবিস্মরণীয় চিহ্ন। তিনি আরও বলেছেন ভগবান শ্রীরাম সকলের মধ্যেই রয়েছেন। তিনি কল্যাণকর। আর এই কারণেই তাঁকে পুরুষোত্তম বলা হয়। এক রাজনৈতির বিশ্লেষকের কথায়া প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর এই বিবৃতেত যেমন রামের গুণকীর্তন রয়েছে তেমনই রয়েছে ঐক্যের বার্তা।

সৈকতে উদ্ধার রহস্যময় প্রাণীর দেহ, মনস্টার না ম্যামথ- ভাইরাল ছবি ঘিরে নেট তরজা শুরু ..  

অযোধ্যায় রাম মন্দিরের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে কংগ্রেসকে আমন্ত্রণ জানান হয়নি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীসহ ১৭৫ অতিথি এই অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাতেই সম্পন্ন হবে ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনের শুভকাজ।

কাজের ভুলের জন্য এতবড় শাস্তি পেতে হল পরিচারিকাকে, প্রাণ হাতে বাড়ি থেকেই ছুটলাগালেন তিনি ...