সাফল্যের দিনেই জীবনে নেমে এল চূড়ান্ত হতাশা। শুক্রবার সকালেই কমল নাথ ইস্তফা দেওয়ার পরই মধ্যপ্রদেশের ক্ষমতা দখল নিশ্চিত করে ফেলেছিল বিজেপি। তাতে সাফল্যই দেখেছিলেন মধ্যপ্রদেশের জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার অনুগামী বিধায়ক সুরেশ ধাকার। কিন্তু সেই আনন্দ বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। কারণ এদিনই রাজস্থানের শ্বশুরবাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে তাঁর ২৪ বছরের মেয়ের নিথর দেহ। গলায় ফাঁস লাগান অবস্থায় তাঁর দেহ উদ্ধার হয়। বাড়ির ভিতর থেকেই পাওয়া যায় নিথর দেহ। প্রাথমিক ভাবে পুলিশ মনে করছে আত্মহত্যা করেছে গৃহবধূ। বৃহস্পতিবার মাঝ রাত থেকে শুক্রবার ভোর রাতের মধ্যে কোনও একটা সময় আত্মহত্যা করেছিল বলেই মনে করছে পুলিশ। 

মৃতার নাম জ্যোতি। তাঁর স্বামী চিকিৎসক। বিয়ে হয়েছে কয়েক বছর আগে। রাজস্থান সরকারের স্বাস্থ্যদফতরে উচ্চপদে কর্মরত। একটি দুবছরের মেয়েও রয়েছে জ্যোতির। কিন্তু কেন জ্যোতি আত্মহত্যা করল। তা এখনও স্পষ্ট নয় পুলিশের কাছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে স্থানীয় পুলিশ। পুলিশের তরফে জানান হয়েছে, এখনও জ্যোতির শ্বশুর, শাশুড়ি কেউ বয়ান দিতে রাজনি হননি। কথা বলা যায়নি মৃতার স্বামীর সঙ্গেই। তবে পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। 

আরও পড়ুনঃ বিদেশ ফেরতরা ১৪ দিনের জন্য নিজেকে গৃহবন্দি করে রাখুন, করোনা মোকাবিলায় আর্জি আইসিএমআর-এর

আরও পড়ুনঃ পার্টিতে করোনা আক্রান্ত কণিকার সঙ্গে ছেলেকে নিয়ে ছিলেন বসুন্ধরা, আতঙ্কে স্বেচ্ছাবন্দি, তোপ ডেরেকের

সুরেশ জ্যোতিরাদিত্যের অনুগামীদের মধ্যে একজন। জ্যোতিরাদিত্য কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় তিনিও দল বদল করেছিলেন। তারপর থেকে ছিলেন বেঙ্গালুরুতে। মধ্যপ্রদেশের রাজনৈতিক সংকট কেটে যায়ও এদিনই তাঁর স্বস্তি পাওয়ার কথা। কিন্তু তারমধ্যে আসে মেয়ের মৃত্যুর খবর। যা তাঁকে চ়ূড়ান্ত হতাশার মধ্যে ঠেলে দিয়েছে বলেই জানিয়েছেন তাঁর ঘনিষ্ট ব্যক্তিরা।