ফ্রান্স থেকে ৭ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে ভারতে চলে আসছে পাঁচ পাঁচটি রাফাল যুদ্ধ বিমান। ২৯ জুলাই এই যুদ্ধবিমানগুলি ভারতে পৌঁছবে। বুধবারই ৫টি রাফাল জেট ভারতের আম্বালা এয়ারবেসে পৌঁছবে। তবে রাফাল দেশের মাটি ছোঁয়ার সময় কোনওরকম ছবি তোলা যাবে না। নির্দেশিকা জারি করে দিল প্রশাসন।

বুধবার এই বিমানগুলি বায়ুসেনার অন্তর্ভূক্ত হবে। আম্বালা বায়ুসেনা ঘাঁটির ‘গোল্ডেন অ্যারো’ ১৭ নম্বর স্কোয়াড্রনের অন্তর্ভুক্ত করা হবে পাঁচটি রাফালকে।  এনিয়েই এখন  সাজসাজ রব আম্বালায়। পাঁচ যুদ্ধ জাহাজকে স্বাগত জানাতে তৈরি আম্বালা এয়ার ফোর্স স্টেশন।

আরও পড়ুন: দীর্ঘ সফরে মাঝ আকাশে ফুয়েল ভরল রাফাল, কাউন্টডাউন শুরু আম্বালার বায়ুসেনা ঘাঁটিতে

আম্বালা বিমানঘাঁটিতে ইতিমধ্যেই এই যুদ্ধবিমানগুলির জন্য প্রস্তুতি সম্পূর্ণ হয়েছে।  দিল্লির কাছে হরিয়ানার এই ঘাঁটিতে প্রথম দফায় আসা রাফাল যুদ্ধবিমান মোতায়েন করা হবে। রাফাল যুদ্ধবিমান রাখার জন্য আম্বালা বিমানঘাঁটিতে আলাদা করে পরিকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে, বিমান রাখার জায়গা (হ্যাঙ্গার), এয়ার-স্ট্রিপ ও কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সিস্টেম। রাফালের প্রথম স্কোয়াড্রনের নাম রাখা হয়েছে গোল্ডেন অ্যারো।

 

 

তবে যুদ্ধ বিমানের নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত প্রশাসন। সেই কারণে  আম্বালা এয়ার ফোর্স স্টেশনের ৩ কিলোমিটার ব্যাসার্ধে কোনও ড্রোন ওড়ানো যাবে না বলে ঘোষণা করা হয়েছে। যাতে এই এলাকায় আকাশপথে কোনওরকম নজরদারি চালান না যায়। এই নির্দেশ ভাঙলে তার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আম্বালা ক্যান্টনমেন্টের ডিএসপি। শুধু তাই নয় আম্বালা এয়ারবেসের পার্শ্ববর্তী ৪টি গ্রামে ইতিমধ্যে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। পাশাপাশি রাফাল নামার সময় কেউ যাতে ছবি না তোলেন সেই নির্দেশিকাও জারি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: বায়ুসেনার অন্তর্ভূক্ত হওয়ার ৭ দিনের মধ্যেই লাদাখে, অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমানকে নিয়ে বাড়ছে জল্পনা

 বুধবার সকালেই পাঁচটি রাফাল জেটের বায়ুসেনার আম্বালা ঘাঁটিতে এসে পৌঁছনোর কথা। আম্বালা থেকে চিন সীমান্ত মাত্র ৩০০ কিলোমিটার দূরে৷ এই মুহূর্তে চিনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক খুব একটা স্বস্তিদায়ক জায়গায় নেই৷ তাই কোনও উত্তেজনাকর পরিস্থিত তৈরি হলে যাতে ভারতীয় সেনা নিজেদের সেরা যুদ্ধবিমানকে কাজে লাগাতে পারে তাই আম্বালা এয়ারবেসেই ঠাঁই পাচ্ছে রাফাল৷