ভারতে ইতিমধ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২৩ হাজার ছাড়িয়েছে। মৃতের সংখ্যা ৭০০ গণ্ডি ছুঁয়ে ফেলেছে। মহারাষ্ট্র, দিল্লি, গুজরাত, তামিলনাড়ু, কর্ণাটক, মধ্যপ্রদেশের মত রাজ্যগুলিতে প্রতিদিনই বাড়ছে সংক্রমণের সংখ্যা। এই পরিস্থিতিতে  দেশকে পথ দেখাচ্ছে উত্তর-পূর্ব ভারত। দেশের মধ্যে একমাত্র রাজ্য সিকিম, যেখানো এখনও পর্যন্ত করোনা সংক্রমণের কোনও খবর নেই। এবার নিজেদেরকে করোনা ফ্রি রাজ্য বলে দাবি করলেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবও।

ত্রিপুরায় এখনও পর্যন্ত ২ দনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছিল। তাঁদের মধ্যে একজন আগেই সুস্থ হয়ে ওঠেন। দ্বিতীয় ব্যক্তিরও পরীক্ষার রিপোর্ট এবার নেগেটিভ এসেছে। এই অবস্থায় তাঁর রাজ্য করোনা সংক্রমণ মুক্ত বলেই দাবি করছেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। 

 

তবে রাজ্যে নতুন করে সংক্রমণের খবর না থাকলেও ত্রিপুরাবাসীর কাছে  সাবধানতা অবলম্বন করতে সামাজিক দূরত্বরে বিধি মেনে চলার আবেদন করে ট্যুইট করেছেন বিপ্লব দেব। 

গত ৬ এপ্রিল ত্রিপুরায় প্রথম করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া যায়। সংক্রমণের শিকার হন গোমতী জেলার উদয়পুরের বাসিন্দা এক মহিলা। জানা যায়,  লকডাউনের আগে গুয়াহাটি থেকে ফেরেন তিনি। গত ১৬ এপ্রিল তিনি সুস্থ হয়ে ওঠেন। এছাড়াও ত্রিপুরা স্টেট রাইফেলসের এক জওয়ানও করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছিলেন। তিনি উত্তর ত্রিপুরার ডামচেরার বাসিন্দা। গত ১৬ এপ্রিল তার করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তারপর থেকেই জিবি পন্থ হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছিল। গত বৃহস্পতিবারই ওই জওয়ানের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। 

দিল্লিতে একসঙ্গে আক্রান্ত হাসপাতালের ১৪ জন চিকিৎসক , মহারাষ্ট্রে কোয়ারেন্টাইনে প্রায় ৮৩ শতাংশ

তৃতীয় বিশ্বের চেয়েও খারাপ পরিণতির পথে আমেরিকা, রেকর্ড গড়ে একদিনে মৃত্যু ৩ হাজার ছাড়াল

ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে গিয়ে সংক্রমণের শিকার হচ্ছেন সাংবাদিকরা, ঘোষণা করা হল ১০ লক্ষের বিমা

করোনা আক্রান্ত ওই জওয়ানের আরও একবার করোনা পরীক্ষা করা হবে। সেই রিপোর্ট নেগেটিভ আসলেই তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী রতনলাল নাথ। ত্রিপুরার বর্তমানে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে ২২৭ জনকে। হাসপাতালের নজরদারিতে রয়েছেন ১১১ জন।

উত্তরপূর্বের রাজ্য মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, মেঘালয় ও অরুণাচল প্রদেশে এখনও পর্যন্ত ১ জন করে করোনা আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে। এখনও পর্যন্ত করোনা মুক্ত দেশের ৩ কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল লাক্ষাদ্বীপ, দাদরা ও নগর হাভেলি এবং দমন ও দিউ।