ভারতের করোনা পরিস্থিতি ক্রমশ চোখ রাঙাচ্ছে। ক্রমশ বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, বাড়ছে মৃত্যুর হার। উল্লেখ্য, গত ২৪ ঘন্টায় গোটা দেশে করোনায় মৃত্যু হয়েছে এক হাজার ৬১৯ জনের। আক্রান্তের সংখ্যা ২লক্ষ ৭৩ হাজার ৮১০জন।

এই পরিস্থিতিতে নিজের ভারত সফর বাতিল করলেন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর দফতর ডাইনিং স্ট্রিট অফিসের তরফে জানানো হয়েছে ভারতে ক্রমশ উদ্ভুত করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত। সোমবারই এই ঘোষণা করা হয়। উল্লেখ্য, ২৫শে এপ্রিল ভারত সফরে আসার কথা ছিল বরিস জনসনের। 

আরও পড়ুন - দেশের মানুষের জীবন ও জীবিকার বাঁচানোর লক্ষ্যেই কাজ করছে কেন্দ্র, ঘোষণা অর্থমন্ত্রীর

আপাতত সেই সফর বাতিল ঘোষণা করেছে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর অফিস। এই প্রেক্ষিতে একটি বিবৃতি জারি করেছে ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রক। বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচি সোমবার জানান, দেশ জুড়ে ক্রমশ ভয়াল হয়ে উঠছে পরিস্থিতি। এই অবস্থায় ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর ভারতে আসা নিরাপদ নয়। ভারতও ব্রিটেনের এই সিদ্ধান্তে সম্মতি জানিয়েছে। 

উল্লেখ্য, ২০২১ সালের প্রজাতন্ত্র দিবস অর্থাৎ ২৬শে জানুয়ারি প্রধান অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত ছিলেন বরিস জনসন। কিন্তু ব্রিটেনে সেই সময় দেখা দেয় করোনার নতুন স্ট্রেন। ফলে তখনও বাতিল করা হয় বরিস জনসনের ভারত সফর। এই বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে কথাও বলেন তিনি। ভারতে না আসতে পারার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন বরিস জনসন। 

মহারাষ্ট্র, উত্তর প্রদেশ, দিল্লি, কর্ণাটক, কেরল, ছত্তিসগড়, মধ্য প্রদেশ, তামিলনাড়ু, রাজস্থান এবং গুজরাটে ১০ হাজারেরও বেশি আক্রান্তের খবর পাওয়া গিয়েছে। ভারতে এখনও পর্যন্ত ১,৫০,৫৭,৭৬৭ জন আক্রান্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টার মধ্যে ২,৭৪,৯৪৪ টি নতুন আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে। এখন পর্যন্ত ১,৭৮,৭৯৩ জন প্রাণ হারিয়েছেন করোনায়। একদিনে মারা গিয়েছেন ১,৬২০ জন। 

আরও পড়ুন - কোভিডে ভয়াবহ অবস্থা, আগামীকাল থেকে বন্ধ রাজ্য়ের সকল সরকারি স্কুল

এদিকে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী করোনা মহামারির দ্বিতীয় তরঙ্গের মধ্যে কুম্ভ মেলাকে 'প্রতীকী' করার পরামর্শ দিয়েছিলেন। তার আগে মেডিকেল গ্রেড অক্সিজেনের চাহিদা ও সরবরাহের ঘাটতি মেটাতে একটি উচ্চ পর্যায়ের পর্যালোচনা বৈঠক করেছিলেন তিনি। অন্যদিকে, যে ১১টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে গত কয়েকদিনে কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা ব্যাপকভাবে বাড়ছে, সেই রাজ্যগুলির স্বাস্থ্য মন্ত্রীদের সঙ্গে একটি উচ্চ পর্যায়ের পর্যালোচনা বৈঠক করেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. হর্ষ বর্ধন।