সামনের সপ্তাহেই হোলি। আর রঙের উৎসবে সাজবেন বলে স্বামীর কাছে নতুন পোশাক চেয়েছিলেন এক মহিলা। স্বামী তা দিতে নারাজ হওয়ার মাশুল দিতে হল ছয় মাসের এক কন্যা সন্তানকে। নিজেরে মেয়েকে বেধড়ক মারধর করলেন মা। সেই অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে অকালেই চলে গেল ছোট্ট প্রাণ। এমন নৃশংস  ঘটনা ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ের রামপুর গ্রামে।

আরও পড়ুন: করোনার থাবায় ফিকে এবার রঙের উৎসবও, চিন থেকে আমদানি কমায় দাম বাড়ছে পিচকেরির

জানা গেছে বছর পঁচিশের ওই মহিলার নাম পিঙ্কি শর্মা। পেশায় কারখানার শ্রমিক রাহুলের সঙ্গে বছর চারেক আগে বিয়ে হয় পিঙ্কির। দুজনের তিন বছরের একটি ছেলেও রয়েছে। এবারের হোলিতে  নিজের ও সন্তানদের জন্য নতুন পোশাক চাই বলে স্বামীর কাছে বায়না করেছিল পিঙ্কি। কিন্তু সেই আবদার রাখা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়, স্বামী একথা জানিয়ে দিতেই শুরু হয় ঝগড়া। স্ত্রীর সমস্ত রাগ তখন গিৃয়ে পড়ে নিজের ছয় মাসের কন্যা সন্তানের উপর। মারতে শুরু করে দুধের শিশুটিকে। আঘাত সহ্য করতে না পেরে মরেই যায় কন্যা সন্তানটি। 

আরও পড়ুন: তাজমহলের শহরে এবার অধরা হোলির মজা, জারি থাকবে ১৪৪ ধারা

রাহুলের অভিযোগের ভিত্তিতেই পিঙ্কি শর্মাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে খুনের মামলাও দায়ের হয়েছে। পুলিশি জেরায় পিঙ্কি জানিয়েছে, সন্তানকে মেরে ফেলার কোনও উদ্দেশ্য তার ছিল না। স্বামীর উপর বিরক্তি থেকেই এই কাণ্ড ঘটিয়ে ফেলেছে। 

যদিও পুলিশের কাছে পুরো বিষয়টিই এখনও ধোঁয়াশায় ঘেরা। প্রশ্ন উঠছে স্ত্রী পিঙ্কিকে এমন কাজ করতে দেখে কেন বাধা দিল না স্বামী রাহুল।