উত্তরাখণ্ডের পুরো পরিস্থিতি পর্যালোচনার জন্য সোমবার মুখ্যমন্ত্রী ত্রিভেন্দ্র সিং রাওয়াত ইসরোর বিজ্ঞানী, ভারত তিব্বত সীমান্ত পুলিশ বাহিনী, জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী ও রাজ্য প্রশাসনের শীর্ষ কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। তারপরই তিনি বলেন হিমবাহ ফেটে গিয়ে নয়, এই প্রাকৃতিক বিপর্যের কারণ পাহাড় থেকে কয়েক মিলিয়ন টন বরফ হঠাৎ করে নেমে যাওয়া। ত্রাণ ও উদ্ধারকাজ খতিয়ে দেখতে তিনি চামোলির বন্যকবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন। সেখানেই তিনি এদিন রাতে থাকবেন বলেও জানিয়েছেন। 
চামোলি রওনা দেওয়ার আগে তিনি বলেন পুরো ঘটনা যথেষ্টই দুর্ভাগ্যজনক। একই সঙ্গে তিনি বলেন উন্নয়ন বিরোধী জনমত তৈরি না করার আবেদনও জানিয়েছেন তিনি। 

উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী বলেন ইসরোর কর্মকর্তারা তাঁকে ঘটনাস্থলের ছবি দেখিয়েছেন। সেই ছবিতে কোনও হিমবাহ দেখা যাচ্ছে না। কেবল একটি ফাঁকা পাহাড় দেখতে পাওয়া যাচ্ছে। পাহাড়ের চূড়ার কিছু রয়েছে বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি। বলেন  এটি সম্ভবত ট্রিগার পয়েন ছেকে প্রচুর পরিমাণে তুষার হ্রাস পায়। আর তুষারই ঋষিগঙ্গা ও ধৌলিগঙ্গা নদীকে হড়পা বান তৈরি করে। তিনি আরও বলেন যে অঞ্চল থেকে বিপর্যয়ের উৎপত্তি সেটি হিমস্প্রোপের ঝুঁকির মধ্যে নেই। প্রাথমিক রিপোর্টে যে হিমবাহ ফেটে যাওয়ার কথা বলা হয়েছিল সেটি সম্ভবত ঘটেনি। রাওয়াত দাবি করেছেন, লক্ষ লক্ষ মেট্রিক টন বফর একটি পাহাড়চূড়াকে নগ্ন করে দিয়ে আচমকাই নেমে যায়। তাতেই এই বিপত্তি বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর 'LAC' মন্তব্যকেই হাতিয়ার করল চিন, ভিকে সিং-এর মন্তব্য বুমেরাং হবে নাতো ...

প্রাইমা ফেসি হিমবাহ ঝুলে রয়েছে, বিপর্যয়ের কারণ দেখতে আকাশ পথে পরিদর্শন DRDO-র ...

রবিবারের প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণে এখনও পর্যন্ত ২০ জনের দেহ উদ্ধার হয়েছে। দেড়শো জন এখনও নিখোঁজ রয়েছে। উদ্ধারকাজ করছে ভারত তিব্বত সীমান্ত পুলিশ বাহিনী, ভারতীয় সেনা, রাজ্য ও জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী। রাওয়াত জানিয়েছেন প্রশাসনের পূর্ণ সহযোগিতা তাঁরা পাচ্ছে। ত্রাণ বন্টন আর উদ্ধারকাজ চলছে জোর কদমে।