সোমবার সকালে ভারতের দৈনিক নতুন করোনা রোগীর সংখ্যা ছিল ৩৮,৭৭২। একদিনে নতুন রোগীর সংখ্যা কমল প্রায় ২০ শতাংশ। মঙ্গলবার সকালে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যান মন্ত্রক জানিয়েছে গত ২৪ ঘন্টায় ভারতে ৩১,১১৮ টি নতুন করোনাভাইরাস রোগীর সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। এর ফলে এদিন ভারতের মোট করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৯.৬২ লক্ষেরও বেশি।

এদিন স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে, এখনও অবধি ভারতে ৯৪,৬২,৮১০ টি নিশ্চিত কোভিড-১৯ রোগীর কথা নথিভুক্ত করা হয়েছে। এরমধ্যে বর্তমানে চিকিৎসাধীন ৪,৩৫,৬০৩ জন। অর্থাৎ, চিকিৎসাধীন রোগীর হার মোট কেস লোডের মাত্র ৪.৭৪ শতাংশ। আর গত ২৪ ঘন্টায় কোভিড জনিত কারণে মৃত্যু হয়েছে ৪৮২ জনের। ফলে কোভিডে ভারতে এখনও অবধি মৃত্যু হয়েছে ১,৩২,৬২১ জনের।
অন্যদিকে ভারতের সুস্থতার হার-এর বৃদ্ধি এদিনও অব্যাহত রয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় আরও ৪১,৯৮৫ জন কোভিডমুক্ত হওয়ায় ভারতে এখনও পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যা পৌঁছেছে ৮৮,৮৯,৫৮৫-তে। ফলে বর্তমানে  ভারতের সুস্থতার হার ৯৩.৮১ শতাংশ।

আরও পড়ুন - শুধু ধর্ম নয়, পুরুষদের জানাতে হবে আরও বেশি কিছু - অসমে আরও কড়া 'লাভ জিহাদ' আইন

আরও পড়ুন - ডিসেম্বর পড়লেও শীত এল না কলকাতায়, সপ্তাহান্তে আরও চড়বে পারদ

আরও পড়ুন - ৫০০-র মধ্যে শুধু ৩২টি সংগঠন ডাক পেল সরকারের, ক্ষুব্ধ কৃষকরা আদৌ যোগ দেবেন তো

এখনও ভারতে করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্যগুলি হল - মহারাষ্ট্র, কর্ণাটক এবং অন্ধ্রপ্রদেশ। তবে তামিলনাড়ু, কেরল ও উত্তরপ্রদেশের মতো রাজ্যেও দ্রুত সংক্রমণ বাড়ছে। কোভিড-১৯-এ ভারতের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ পাঁচটি রাজ্য -

> মহারাষ্ট্র - ১৮,২৩,৮৯৬
> কর্ণাটক - ৮,৮৪,৮৯
> অন্ধ্রপ্রদেশ - ৮,৬৮,০৬৪
> তামিলনাড়ু - ৭,৮১,৯১৫
> কেরল - ৬,০২,৯৮২

অন্যদিকে, সোমবার সকালেই ১৪ কোটি নমুনা পরীক্ষার মাইলফলক পার করেছিল ভারত। এদিন ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর মেডিকাল রিসার্চ বা আইসিএমআর জানিয়েছে, সোমবার ভারতে করোনার জন্য আরও ৯,৬৯,৩২২ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। ফলে ৩০ নভেম্বর অবধি ভারতে মোট কোভিড পরীক্ষা হয়েছে ১৪,১৩,৪৯,২৯৮ টি।