বন্ধুত্বের না কোনও নাম হয়, না কোনও বয়স, ভালবাসার অপর নামই বোধ হয় নির্ভেজাল বন্ধুত্ব। আর বন্ধুর দন্য বন্ধু যে কতকিছুই না করতে পারে তা সিনেমার পর্দা থেকে বাস্তব জীবন, নানা জায়গাতেই ঘুরে ফিরে এসেছে। মনের সুখ-দুঃখের যাবতীয় কথা শেয়ার করার আদর্শ জায়গা হল বন্ধু। বন্ধুদের সঙ্গে পার্টি কিংবা নাইট আউট করার জন্য যেকোনও বাহানাই করা যায়। বিশেষ করে কোথাও ঘুরতে যাওয়ার পরিকল্পনা হলে তা যেন বন্ধু-বান্ধবদের ছাড়া অসম্পূর্ণ। 

তবে একথা ঠিক যে, বয়স যতই বাড়ে বন্ধুদের জন্য বরাদ্দ সময়েও যেন খানিকটা ভাটা পড়ে। দেখা-সাক্ষাত বা যোগাযোগের সময়ও যেন কমে আসে। কিন্তু এবার এমন একদল বন্ধুর কথা জানতে চলেছেন, যারা অবসর যাপনের জন্য বানিয়ে ফেলেছেন আস্ত একটা শহর। টেক্সাসের চার বন্ধু মিলে পরিকল্পনা করে একে অপরের থেকে ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে তৈরি করেছেন নিজেদের বাড়ি। এইভাবে বন্ধুদের কেই প্রতিবেশী হিসাবে নির্বাচন করেছেন তাঁরা। 

 

বেঁচে নেই ট্রাম্প-মাকরেঁর বন্ধুত্বের প্রতীক

অস্টিনের নিকটবর্তী টেক্সাসের লানো নদীর ওপর তাঁরা একটুকরো জমি কিনে সেটাকেই একটা শহরে পরিণত করেছে। সেখানেই ১৫০০ বর্গফুটের একটি কমিউনিটি বিল্ডিং তৈরি করেন তাঁরা। বাড়িগুলি সব হাল আমলের ডিজাইনেই তৈরি। এমনকী বাড়ি তৈরির সমস্ত উপকরণই পরিবেশ-বান্ধব জিনিস দিয়ে তৈরি। এক একটি কটেজ তৈরি করতে খরচ পড়েছে ৪০,০০০ ডলার। কর্মজীবন থেকে অবসর নেওয়ার পর ওই চার বন্ধু তাঁদের পরিবার নিয়ে সেখানেই পাকাপাকিভাবে থাকবেন বলে ঠিক করেছেন।