করোনা ভাইরাস নমিয়ন্ত্রণে আনতে হিমশিম খাচ্ছে চিন। মারণ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে মূল ভূখণ্ডের সর্বত্র। করোনায় মৃত্যু মিছইল ক্রমেই বাড়ছে। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এর মধ্যে চিনে নতুন করে দেখা দিয়েছে বার্ডফ্লু আতঙ্ক। সম্প্রতি চিনে বার্ডফ্লুর প্রাদুর্ভাব ঘটেছে বলে দাবি করছে জাপানি সংবাদমাধ্যম।

আরও পড়ুন: চিনে করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়ে গেল ৩৫০, হংকং-এ ধর্মঘটের ডাক চিকিৎসা কর্মীদের

গত শনিবার চিনের কৃষি ও গ্রাম বিষয়ক মন্ত্রক এক বিবৃতিতে জানায় এইচ৫এন১ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সাড়ে চার হাজার মুরগি মারা গেছে। এইচ৫এন১ ভাইরাস থেকেই হয় বার্ডফ্লু। এই এইচ৫এন১ ভাইরাসে আক্রান্ত মুরগির দেখা মিলেছে শাওয়াং শহরের পোলট্রি ফার্মে। ভয়ের বিষয় হল এই শাওয়াং শহর করোনাভাইরাসের উৎপত্তিস্থল হুবেই প্রদেশের পার্শ্ববর্তী প্রদেশ হুনানে অবস্থিত। 

 

পোলট্রি থেকে মানুষের শরীরে ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় প্রায় ১৮ হাজার মুরগিকে ইতিমধ্যে হত্যা করা হয়েছে।পোলট্রি খামারটির ৭ হাজার ৮৫০ টি মুরগি  বার্ডফ্লুতে আক্রান্ত ছিল বলে জানিয়েছে চিনের কৃষি মন্ত্রক। তার পরেই ফার্মের সবকটি মুরগিকে মেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। 

আরও পড়ুন: সোমবার রাত থেকেই শহরে আবহাওয়ার পরিবর্তন, চলতি সপ্তাহে ফের বৃষ্টির পূর্বাভাস

 এইচ৫এন১ ভাইরাসে কেবল হাঁস, মুরগি মায়া যান তাই নয়, মানুষের শীরেরও এর সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েছে। ২০১৫ সালে বার্ডফ্লুয়ে আক্রান্ত হয়ে মানুষ মারা গিয়েছিল চিনে। গত বছরও লিওয়ানিং প্রদেশে এইচ৫এন১ ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঘটেছিল তা স্বীকার করে নিয়েছে চিনা সরকার। করোনাভাইরাসের মত মারাত্মক আকার ধারণ না করলেও এইচ৫এন১ ভাইরাসের প্রভাবে মানুষের দেহে নানা উপসর্গ দেখা দেয়।