মঙ্গলবার গভীর রাতে প্রায় ঘুমে আচ্ছন্ন ছিল পার্বত্য রাজ্য নেপাল। রাত ১১টা ৫৩ নাগাদ দুলে উঠেছিল  পাহাড়ী এই রাজ্যের বিস্তীর্ণ এলাকা। রিখটার স্কেলে কম্পনের মাত্রা ছিল ৫.৩ ম্যাগ্নিচিউড। মাঝারি এই ভূমিকম্পেই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। রাতের আন্ধকারেই বাড়ি থেকে বেরিয়ে পড়েন অনেকে। 

আরও পড়ুনঃ ৩ পর্বের লকডাউনের পরই আন্তর্দেশীয় পরিষেবা এয়ার ইন্ডিয়ার , বিশেষ বিমানের ব্যবস্থা ...

নেপাল সরকারের পক্ষ থেকে জানান হয়ছে কাঠমান্ডু থেকে ১৮০ কিলোমিটার দূরে অবস্থা দোখলা জেলাতই ছিল কম্পনের উৎসস্থল। 

আরও পড়ুনঃ 'শিরোনাম ছাড়া আর কিছুই নেই' মন্তব্য চিদম্বরমের, বিকেলেই আর্থিক প্যাকেজ নিয়ে বিস্তারিত জানাবেন নির্ম...

২০১৫ সালে এই ২৫ এপ্রিল ভয়ঙ্কর ভূমিকম্পের সাক্ষী ছিল নেপাল। কম্পনের মাত্রা ছিল ৭.৮।  প্রায় ৯ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। প্রায় ৫ লক্ষ বাডি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। আর মঙ্গলবার রাতে ভূমিকম্প হওয়ায় আবার সেই আতঙ্ক ফিরে আসে। এমনিতেই করোনাভাইরাসের কারণে যথেষ্ট সংকটে পড়েছে নেপাল। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২০০ বেশি।  বন্ধ রয়েছে পর্যটন। এই অবস্থায় ভূমিকম্প ক্ষয়ক্ষতি বেশি হলে সংকট আরও বড়ত বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। তবে নেপাল সরকার জানিয়েছে সম্পত্তির  কোনও ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। কেউ গুরুতর আঘাত পাননি। 

আরও পড়ুনঃ চিনা বংশোদ্ভূত সাংবাদিকের সঙ্গে তুমুল তরজা, আচমকা সাংবাদিক সম্মেলন শেষ করলেন ট্রাম্প .