ডিসেম্বর থেকে গোটা বিশ্ব করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করে চলেছে। কিন্তু এখনও নিয়ন্ত্রণে আনতে পারা সম্ভব হয়নি এই মারাত্মক ছোঁয়াচে জীবাণুকে। আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে বাড়তে ৮০ লক্ষ ছুঁতে চলছে। এখনও পর্যন্ত বিশ্বের করোনা আক্রান্ত দেশগুলির ক্রম তালিকায় প্রথম স্থানে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। আক্রান্তের সংখ্যা ২১ লক্ষের বেশি। মৃতের সংখ্যাতেই এগিয়ে রয়েছে আমেরিকা। মৃত্যু হয়েছে এক লক্ষেরও বেশি। দ্বিতীয় স্থানেই রয়েছে ব্রাজিল। আক্রান্তের সংখ্যা ৮ লক্ষের বেশি। এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৪৩ হাজার মানুষের। 


দক্ষিণ আমেরিকার বৃহত্তম দেশ ব্রাজিল। পর্যটন ফুটবল আর কফির জন্য গোটা বিশ্বেই সমাদৃত। সাম্বার দেশ ব্রাজিলেই করাল থাবা বসিয়েছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। স্থানীয় প্রশাসনের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী মৃত্যুর হার দাঁড়িয়ে পাঁচ শতাংশে।এখনও পর্যন্ত ৪ লক্ষের কিছু কম মানুষ স্থুস্থ হয়েছেন। বিশেষজ্ঞরা করোনার আগামী হটস্পট হিসেবে ব্রাজিলকেই চিহ্নিত করছেন।  করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিয়ে দেশের মধ্যে কিছুটা হলেও চাপে পড়তে হয়েছে বলসোনারো প্রশাসনকে। 

রাজ্যের করোনা সংকট কাটিয়ে উঠে মেয়ের বিয়ে দিলেন বিজয়ন, কেমন ছিল বিয়ের আসর ...

রাহুল গান্ধীর তূণে 'আইনস্টাইন' বান, করোনা নিয়ে অভিনব কায়দায় আক্রমণ মোদী সরকারকে ...

ইমরানের 'দম্ভ ভেঙে' দিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি আবেদন, দক্ষিণ এশিয়ায় উদ্বেগ বাড়াচ্ছে পাকিস্তান...

অন্যদিকে করোনাভাইরাস দ্বিতীয়বারের জন্য ফিরে এল কিনা তা নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে। কারণ নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে চিনে। ৪৯ জন সংক্রমিত হয়েছেন বলে সূত্রের খবর। বেজিং ও সংলগ্ন প্রায় ১০টি এলাকায় নতুন করে লকডাউন শুরু করেছে চিন। সংক্রমণ যাতে না ছড়ায় সেই দিকেই গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনের তরফে জানান হয়েছে উত্তর পশ্চিম হাইডিয়ান জেলার একটি পাইকারি বাজারে নতুন করে এক ব্যক্তি সংক্রমিত হওয়ায় বাজার স্কুল সবকিছু বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেই লকডাউন চালিয়ে যাচ্ছিল চিন। সম্প্রতি আর্থিক কার্যকলাপ শুরু করার জন্য ধীরে ধীরে শিথিল করা হচ্ছিল লকডাউন। কিন্তু সেখানে বাধা হয়ে দাঁড়ায় লকডাউন।