চার্জ ফুরিয়ে যাওয়ায় মোবাইল ফোনটি হয়তো চার্জে বসিয়েছেন। আচমকা ফোন আসায় সঙ্গে সঙ্গে ফোন তুলে কথা বলতে শুরু করে দিলেন ফোনটি চার্জে থাকা অবস্থায়। এই কাজটি হয়তো আপনি প্রায়শই করে থাকেন। অথচ ভেবেও দেখেন না যে এর ফল কতটা কঠিন হতে পারে, যার দাম হয়তো আপনাকে জীবন দিয়েও দিতে হতে পারে। 

ফোন চার্জে দেওয়া অবস্থায় হেডফোন ব্যবহার করায় মৃত্যু হল ২২ বছরের এক যুবকের। ঘটনাটি ঘটেছে থাইল্যান্ডের নাখোন রাটচাসিমায়। যদিও এখনও পর্যন্ত যুবকের পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি। তবে জানা গিয়েছে ঘটনার দিন বাড়িতে একাই ছিল ওই যুবক। পরের দিন তাঁর মা-বাবা বাড়িতে ফিরে দেখেন ছেলের নিথর দেহ পড়ে রয়েছে বিছানায়। বিছানা লাগোয়া প্লাগ পয়েন্টে লাগানো রয়েছে তাঁর মোবািল ফোন, এবং হেডফোনটি তখনও কানে লাগানো রয়েছে। অনেকক্ষণ ধরে ডাকাডাকি করার পরেও কোনও সাড়া-শব্দ না মেলেয় সন্দেহ হয় তাঁদের। যুবককে তড়িঘড়ি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

মার্কিন মুলুকে যাওয়ার ভিসা পেতে আবেদনকারীকে জমা দিতে হবে সোশ্যাল মিডিয়া সংক্রান্ত তথ্য

শর্ট স্কার্ট পরে অফিসে এলে মহিলারা পাবেন বোনাস, সমালোচনার মুখে কোম্পানী

এক মনে ল্যাপটপ নিয়ে কাজ করছেন- এই ভিডিও দেখলে চমকে উঠবেন

এরপর তাঁর দেহ ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়। থাইল্যান্ডের পুলিশ সূত্রে খবর, মোবাইল ফোনে চার্জ দেওয়া অবস্থায় ওই যুবক হেডফোনে গান শুনছিলেন বা হয়তো কারওর সঙ্গে কথা বলছিলেন। আর ঠিক সেই সময়েই তাঁর গোটা শরীর তড়িদাহত হয়ে গিয়েছিল, যার ফলেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর। মৃত যুবকের মায়ের কথায়, তাঁর ছেলে খুবই পরিশ্রমী মানুষ। স্খানীয় একটি কারখানায় কাজ করার পর বাড়ি ফিরে মোবাইল ফোনে গান শোনাই ছিল তাঁর অভ্যেস। কিন্তু তার  ফল যে তাঁকে এইভাবে ভুগতে হবে তা হয়তো ভাবতেও পারেননি কেউ।