আজ থেকে ১০৭ বছর আগে সাহিত্যে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। সেই দিনটির কথা স্মরণ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়েছে নোবেল পুরষ্কার সংস্থা। এতগুলো বছর পরে করিগুরু সংক্রান্ত পোস্টটি মন কেড়ে নিয়েছে নেটিজেনদের।  সংস্থার পক্ষ থেকে ইনস্টাগ্রামে বার্তা দিয়ে লেখা হয়েছে, ১৯১৩ সালের ১৩ নভেম্বর সাহিত্যে নোবেল প্রাইজ পেয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। তিনি ছিলেন প্রথম অ-ইউরোপীয় যিনি সাহিত্যে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছিলেন। 

ভারতের ব্রহ্মস মিসাইল কিনতে চলেছে ফিলিপাইন, নতুন বছরেই হবে সেই চুক্তি .

অনুপ্রবেশকারীদের জন্য যুদ্ধ বিরতি লঙ্ঘন পাকিস্তানের, উপত্যকার ৩ সেক্টরে পাল্টা জবাব ভারতের ...

সংস্থার পক্ষে থেকে আরও বলা হয়েছে বাংলার কবি, সাহিত্যিক, প্রাবন্ধিক, দার্শনিক ও সঙ্গীতশিল্পীর গভীর সংবেদনশীল, সুন্দর কবিতার জন্য তাঁরে সাহিত্যে নোবেল প্রাইজ দেওয়া হয়েছিল। তিনি ছিলেন প্রথম গীতিকার, যিনি অত্যান্ত দক্ষতার সঙ্গে তাঁর কাব্যিক ভাবনা প্রকাশ করেছেন। বাংলার পাশাপাশি ইংরেজি ও পাশ্চাত্য সাহিত্যেরও বিশেষ স্থান জুড়ে রয়েছেন তিনি। গীতাঞ্জলীর জন্যই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নোবেল প্রাইজ দেওয়া হয়েছিল বলে উল্লেখ করেছেন ডাব্লুবি ইয়েটস। তিনি আরও লিখেছেন, ভারতীয় সভ্যতার মতই ভারতের আত্মাকেও তিনি আবিষ্কার করেছিলেন। আর নিজের স্বতঃস্ফূর্তার কাছে বাকিদের আত্মসমপর্ণ করতে বাধ্য করিয়েছিলেন তিনি। 

ইনস্টাগ্রামে এই পোস্টের পরই অনেক ব্যবহারকারী রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। অনেকেই রবি ঠাকুরের লেখা দিয়েই তাঁকে স্মরণ করেছেন। ১৮৬১ সালে কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। কিন্তু ভারতের জাতীয় কবি হিসেবে কখনই স্বীকৃতি পাননি। কিন্তু তাঁর লেখা বাংলা সাহিত্যকে বিশ্বে পরিচিতি দিয়েছিল। নোবেল জয়ী রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ২ হাজারেও বেশি দান লিখেছিলেন।