নামই বদলে ফেলল জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ-ই-মহম্মদ। দলের নাম পালটে রাখা হয়েছে মজলিস ওউরাসা-এ-সুহুদা জম্মু ওয়া কাশ্মীর। হঠাৎ কেন এই ভোলবদল?- জানা গিয়েছে, একদিকে আন্তর্জাতিক চাপ এবং অন্যদিকে পাকিস্তানে জইশ-এর প্রশিক্ষণের ওপর নজরদারি এড়াতেই নতুন নামকরণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ-ই-মহম্মদ। 

প্রসঙ্গত, জইশ প্রধান মাসুদ আজহারের ছোট ভাই মুফতি আবদুল রউফ আসঘর বর্তমানে পাকিস্তানের  এই জঙ্গি সংগঠনের দায়িত্বে রয়েছে। এরপরই দলের নাম পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে খবর। প্রসঙ্গত, সারা বিশ্বে অন্যতম কুখ্যাত জঙ্গি হিসাবে পরিচিত মাসুদ আজহার বর্তমানে গুরুতর অসুস্থ এবং পাকিস্তানের ভাওয়ালপুরের মারকাজ উসমান-ও-আলি-তে ভর্তি। 

ভারতের কাউন্টার টেরর এজেন্সিগুলির তরফে জানানো হয়েছে, জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ নতুন নাম নিয়ে একই নেতৃত্ব এবং সন্ত্রাসবাদী ক্যাডারের নেতৃত্বেই রয়েছে। জইশ-ই-মহম্মদের অন্যতম একজন নেতা মৌলানা আবিদ মুখতার ইতিমধ্যেই ভারতের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা করেছে। পাশাপাশি এই বছরই ভারত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইজরায়েলের বিরুদ্ধে কাশ্মীর একটি ব়্যালির আয়োজন করেছে। 

আরও পড়ুন- পুজোর আগেই সুখবর, দু-দিনের ব্যাঙ্ক ধর্মঘট আপাতত স্থগিত রাখা হল

আরও পড়ুন- 'হাউডি মোদী'র পর ফের ভোলবদল, ইমরানের সঙ্গে বৈঠকে ফের কাশ্মীর ইস্যুতে মধ্যস্থতার দাবি ট্রাম্পের

পাকিস্তানি পর্যবেক্ষকদের মতে, ভারতের বুকে আঘাত হানতে জইশ ৩০টি আত্মঘাতী হামলার জন্য ৩০ জনকে প্রস্তুত করা হয়েছে। বিশেষত, জম্মু ও কাশ্মীরে অবস্থিত ভারতীয় সেনাবাহিনীর ঘাঁটি এবং ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর কনভয়গুলিতে এই আত্মঘাতী হামলা চালানো হবে বলে জানি গিয়েছে। পাশাপাশি রউস আসঘর চলতি মাসে কেবল বালাকোটের মারকাজ সৈয়দ আহমেদ শহিদ ট্রেনিং ক্যাম্পকে সক্রিয় করে তোলেনি, বরং ভাওয়ালপুর ও শিয়ালকোট থেকে ভারতীয় সুরক্ষা বাহিনীকে আক্রমণ করতে নতুন সদস্যও নিয়োগ করা হচ্ছে বলে খবর।