করোনা মহামারীর কারণে ক্রমেই সঙ্কট বাড়ছে বিশ্ব অর্থনীতির। সংক্রমণকে কাবু করতে একাধিক দেশেই এখন লকডাউন চলছে। যার ফলে সব দেশেরই অর্থনীতি এখন ধুকছে। লকডাউনের জেরে সবকিছু বন্ধ থাকায় কর্মী ছাঁটাইয়ের পথে হাঁটতে হচ্ছে একধিক নামি দামী সংস্থাকে। সেই আর্থিক মন্দার এবার শিকার হতে হল মার্কিন অ্যাপ ক্যাব সংস্থা উবার। ইতিমধ্যে এই সংস্থা নিজেদের কর্মীদের ১৪ শতাংশকে ছাটাই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

জানাযাচ্ছে মার্কিন অ্যাপ ক্যাব সংস্থা উবার ইতিমধ্যে নিজেদের ৩,৭০০ কর্মীকে ছাঁটাই করেছে। জুম অ্যাপে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যে সেই বার্তা পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি কর্মীর জন্য বরাদ্দ ছিল ৩ মিনিট। ভিডিও বার্তায় জানিয়ে দেওয়া হয়, " উবারের সাথে আজেকই তোমার কাজ করার শেষ দিন।"

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৩,৭২২ জন, ১৭ মের পর জিম ও গলফ ক্লাব খোলার পথে কর্ণাটক

মানব সভ্যতার অঙ্গাঙ্গী অংশ হতে চলেছে করোনা, এই ভাইরাস যাওয়ার নয়, সতর্ক করে দিল 'হু'

লকডাউনে ট্যাক্সি সফর, দিল্লি বিমানবন্দর থেকে নয়ডা-গাজিয়াবাদে যেতে গুণতে হচ্ছে কমপক্ষে ১০ হাজার

স্কটসডেলের অ্যারিজোনায় উবারের ফিনিক্স সেন্টার অব এক্সিলেন্সের প্রধান রুফিন শেভালিউক কর্মীদের সঙ্গে এই  ভিডিও কনফারেন্স করেন । উবারের ব্যবসা অর্ধেকেরও বেশি কমেছে বলেই কোম্পানিকে এই কঠিন পদক্ষেপ নিতে হচ্ছে বলে জানান তিনি। ৩৭০০ কর্মীর মধ্যে প্রথম ধাপে ৪৬ টি দেশের ৩৫০০ গ্রাহক সুরক্ষায় নিযুক্ত কর্মীদের ছাঁটাই করা হচ্ছে। 

কর্মী ছাটাই নিয়ে  উবারের তরফে জানানো হয়, "কর্মচারীদের ছাড়িয়ে দেওয়া সত্যিই কঠিন এক সিদ্ধান্ত। বর্তমানে আমরা সকলেই কয়েক ডজন শহর ও দেশ জুড়ে বাড়ি থেকে কাজ করছি। কিন্তু এই সঙ্কটকালীন পরিস্থিতিতে আমাদের কাছে আর কোনও উপায়ও খোলা নেই। আমরা গোটা বিষয়টিকেই সহানুভূতির সঙ্গে দেখছি। কাজ হারানো কর্মীদের জন্য আমরা আর্থিক প্যাকেজ ও বিভিন্ন সুবিধা প্রদানেরও চেষ্টা করছি।"

 ফুড ডেলিভারি ব্যবসা উবার ইটস বন্ধ করার কথাও ইতিমধ্যে  ঘোষণা করা হয়েছে  উবারের তরফে। যার জেরে কর্মী ছাঁটাইয়ের মতো পদক্ষেপ নিতে হবে বলে আগেই জানিয়েছিল তারা। এরপর মধ্যপ্রাচ্যে কর্মী ছাঁটাইয়ের কথা ঘোষণা করতে দেখা যায় উবারকে। গতসপ্তাহেই সেখানে উবরের অধীনস্থ সংস্থা কারিমের প্রায় ৩১ শতাংশ কর্মীকে ছাঁটাইয়ের কথা ঘোষণা করা হয়। মধ্যপ্রাচ্যে পরিবহন পরিষেবার পাশাপাশি ফুড ডেলিভারি পরিষেবাও দিত এই কারিম