বৃহস্পতিবার কাজাকাস্তানের চিনা দূতাবাস স্থানীয় চিনা নাগরিকদের জন্য একটি সতর্কতা জারি করেছে। সেই সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে কাজাকাস্তানে অজানা নিউমোনিয়ার প্রকোপ দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি বলা হয়েছে, এই রোগে মৃত্যুর হার করোনাভাইরাসের তুলনায় অনেক বেশি। চিনা রাষ্ট্রদূতের অফিস থেকে জারি করা তথ্য অনুযায়ী আজ্ঞান নিউমোনিয়ায় গত ৬ মাসে এই দেশে ১,৭৭২ জনের মৃত্যু হয়েছে। শুধু জুন মাসেই মৃত্যু হয়েছে ৬২৪ জনের। 

চিনের জিনজিয়াং ইউঘুর স্বায়স্তশাসিত অঞ্চল লাগোয়া প্রতিবেশি রাষ্ট্র কাজকাস্তান। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়েই জন্ম হয়েছে কাজাকাস্তানের। এই দেশের সঙ্গে চিনের বাণিজ্যিক সম্পর্ক খুবই দৃঢ়়। তেল ও খনিজ সম্পদে সমৃদ্ধ কাজাকাস্তানে অন্যতম বিনিয়োগকারী দেশ চিন। এই দেশের ওপর দিয়েই চিনা পণ্য ইউরোপের বাজারে যায়। স্বভাবতই এই দেশে চিনা নাগরিকদের সংখ্যাও বেশি। কাজাকাস্তানে থাকা চিনা নগরিকদের অজ্ঞাত নিউমোনিয়া সম্পর্কে সতর্ক হওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে রাষ্ট্রদূতের ওয়েবসাইটে। 

'সুপার স্প্রেডার' ধরতে কেরলে কমান্ডো বাহিনী, করোনা সংক্রমণ রুখতে আবারও কড়া বিজয়ন প্রশাসন ...

করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক নিয়ে হতাশ করলেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞ, কী বললেন সৌম্যা স্বামীনাথন...

চিনা রাষ্ট্রদূতের অফিসের বার্তাকে স্বীকৃতি দিয়েছেন কাজাকস্তানের স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তিনি বলেছেন করোনাভাইরাসে আক্রান্তের তুলনায় নিউমোনিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ২-৩ গুণ বেশি। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী এক সপ্তাহে মৃত্যু হয়েছে ২০ জনের। প্রতিদিনই প্রায় ২০০-৩০০ জন মানুষ অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে।করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে ১৬ মার্চ থেকেই লকডাউন জারি করা হয়েছিল ওই দেশে। মে মাসে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। কিন্তু তারপর সংক্রমণের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় আবারও লকডাউন জারি করা হয়েছে। কিন্তু চিনা রাষ্ট্রদূতের জারি করা সতর্কবার্তা ঘিরে রীতিমত বিভ্রান্তি দেখা দিয়েছে। কারণ চিন কেন মারণ রোগটিকে 'অজ্ঞাত নিউমোনিয়া' বলেছে তা স্পষ্ট করা হয়নি। পাশাপাশি  বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে এই রোগ সম্পর্কে জানান হয়েছে কিনা তাও স্পষ্ট করে বলা হয়নি। তবে অজ্ঞাত এই নিউমোনিয়া নিয়ে উদ্বেগ ক্রমশই বাড়ছে কাজাকাস্তান ও চিনের মধ্যে। 

ইনফ্লুয়েঞ্জাকেও ছাড়িয়ে গেল করোনা, বিশ্বে আক্রান্ত ১ কোটি ২১ লক্ষেরও বেশি মানুষ .