একাধিকবার ধর্ষিত হয়েছেন নিজের বয়ফ্রেন্ডের কাছে। সেজন্য আইনের দ্বারস্থ হয়েছিলেন এক তরুণী। সব দেখেশুনে হাইকোর্ট তাঁকে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা বলল। ভারতীয় মুদ্রায় যার মূল্য প্রায় ৭.৮ কোটি টাকা!

"তিনি নিজেকে কোনও খানেই নিরাপদ মনে করেন না।" আদালতে জুড়িদের সামনে স্বাক্ষ্য দিতে গিয়ে বলেন নিয়াম নি ডমনেইল নামের ওই তরুণী। ম্যাগনাস মেয়ার হাসভেইটের অত্যাচারের কারণে তাঁর পোস্ট ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিসোডার হয় বলে জানান নিয়াম। সেই কারণে নিজের পছন্দের কাজ শিক্ষকতাতেও ইতি টানতে হয় তাঁকে। ছাড়তে হয় নিজের দেশও।

আরও পড়ুন: প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ত্রিফলা আক্রমণ, খরা ও দাবানলের পর এবার ভাসছে অস্ট্রেলিয়া

২০১১ এবং ২০১২ সালে যখন দু'জনেই সবে কুড়ির গণ্ডী পেরিয়েছিলেন, সেই সময় এই ঘটনা ঘটে। প্রাক্তন প্রেমিকের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ তুলে  মামলা করেছিলেন নিয়াম।সেই সময় দেশের সেন্ট্রাল ক্রিমিনাল কোর্ট হাসভেইটকে দোষী সাব্যস্ত করে। তাকে সাত বছরের কারাদণ্ডও দেওয়া হয়। যদিও ২০১৬ সালে তাঁর ১৫ মাসের কারাদণ্ড মকুব করা হয়। 

আরও পড়ুন: চিনে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৯০০ ছাড়াল, আতঙ্কের পরিবেশে ভারত থেকে দেশে ফেরান হল চিনা পর্যটককে

তবে হাসভেইট মুক্তি পেলেও দমে যাননি নিয়াম নি ডমনেইল। তাঁর উপর হওয়া মানসিক ও শারীরিক অত্যাচার নিয়ে ফের আদালতের দ্বারস্থ হন নিয়াম। এরপরেই তাকে এক মিলিয়ন ইউরো  আর্থিক ক্ষতিপূরণের কথা জানায় আদালত।