ভারতে এসেছিলেন ঘুরতে। কিন্তু করোনা আতঙ্কের কারণে রামেশ্বরমে পা রাখার ঘণ্টা খানেকের মধ্যেই দেশের বিমান ধরতে হল এক চিনা পর্যটককে। যদিও বছর পঁচিশের সেং-এর শরীরে করোনার কোনও লক্ষণই এখনও পর্যন্ত দেখা যানি। করোনার এপিসেন্টার উহান থেকে ৪৫০ কিলোমিটারেরও বেশি দূরে আনহুইয়ের বাসিন্দা সেং। 

 

 

জানা যাচ্ছে, গত ২৪ জানুয়ারি পর্যটক ভিসায় কলকাতায় আসেন সেং। কিন্তু গত শনিবার তিনি রামেশ্বরমে পৌঁছতেই হোটেলকর্মীদের সন্দেহ হয়। সঙ্গে সঙ্গে খবর দেওয়া হয় পুলিশে। স্বাস্থ্যকর্মীরা সেং-এর শারীরিক পরীক্ষাও করেন। যদিও সেং-এর শরীরে করোনার কোনও লক্ষণই পাওয়া যায়নি। তবে চিনে করোনা নিয়ে ভারতে তৈরি হওয়া আতঙ্কের কারণে তাঁকে ১৪ দিনের জন্য আইসোলেশনে থাকতে বলে স্বাস্থ্য দফতর। তবে সেং ভারতে আর না থএকে চিনে ফিরে যাওয়ারই সিদ্ধান্ত নেন। 

আরও পড়ুন: প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ত্রিফলা আক্রমণ, খরা ও দাবানলের পর এবার ভাসছে অস্ট্রেলিয়া

এর পরেই দ্রুত সেং-এর জন্য মাদুরাই থএকে চেন্নাই পর্যন্ত বিমানে টিকিটের ব্যবস্থা করা হয়। রামেশ্বরমে যে ট্যাক্সিতে সেং উঠেছিলেন সেটিও পরীক্ষা করেন স্বাস্থ্যকর্মীরা। 

আরও পড়ুন: রাজ্যে শীতের নতুন ইনিংস, ফের স্বাভাবিকের নীচে শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা

 

 

এদিকে চিনে এখনও কোনও ভাবেই নিয়ন্ত্রণে আনা যায়নি করোনা ভাইরাসকে। এই মারণ ভাইরাসে চিনের মূল ভূখণ্ডে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে ৯০০ গণ্ডী। কেবল রবিবারই করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৯৭ জনের। এদের মধ্যে অধিকাংশই উহান শহরের বাসিন্দা। এখনও পর্যন্ত চিনে সরকারি ভাবে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৪০,১৭১।