ছন্দে শুভমান-
গত ম্যাচের মতোই এই ম্যাচেও ছন্দে ছিলেন কেকেআর ওপেনার শুভমান গিল। গত ম্যাচে অর্ধশতরান করেছিলেন। এই ম্যাচে করলেন ৪৭ রান। 

প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ নারিন-
পরপর তিনটি ম্যাচে ওপেন করে ব্যর্থ নারিন। রাজস্থানের বিরুদ্ধেও তাকে ওপেন করতে পাঠিয়েছিল কেকেআর ম্যানেজমেন্ট। গতকাল করেন ১৪ বলে ১৫। 

আরও একবার ব্যর্থ দীনেশ-
প্রথম ম্যাচে দলের খারাপ পারফরম্যান্সেও ভালো পারফরম্যান্স করেছিলেন দীনেশ। কিন্তু গত ম্যাচে  বিনা রানে আউট হয়েছিলেন। কাল রাজস্থান রয়েলসের বিরুদ্ধে ৩ বলে ১ রান করেন। 

ক্ষণস্থায়ী রাসেল ঝড়-
গত বছরের মতো এই বছর রাসেল ঝড় অনেক কম চলছে। তবু কেকেআরের জিততে অসুবিধা হয়নি শেষ দুটো ম্যাচে। কাল ৩ টি ছক্কা মেরে রাসেল ঝড় শুরু হয়ে গিয়েছিল। তবে শেষপর্যন্ত ১৪ বলে ২৪ রান করে আউট হন তিনি। 

দুর্দান্ত জোফ্রা-
রাজস্থান রয়েলস বোলারদের মধ্যে কেউই কাল তেমন প্রভাব ফেলতে পারেনি। একমাত্র ব্যাতিক্রম জোফ্রা আর্চার। ৪ ওভারে ১৮ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন তিনি। 

ছন্দে ফিরলেন কামিন্স-
প্রথম ম্যাচে বেধড়ক মার খাওয়ার পর গত ম্যাচেই ছন্দে ফিরেছিলেন কামিন্স। কাল রাজস্থানের বিরুদ্ধেও দুর্দান্ত বোলিং করেন তিনি। ৩ ওভারে মাত্র ১৩ রান দিয়ে নেন ১ টি উইকেট। 

ব্যর্থ স্টিভ ও সঞ্জু-
রাজস্থানের সাম্প্রতিক সাফল্যের পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ ছিল স্টিভ স্মিথ ও সঞ্জু স্যামসনের দুরন্ত ফর্ম। কিন্তু কেকেআরের বিরুদ্ধে দুজনেই ব্যর্থ হন। সঞ্জু ফেরেন ৮ রানে। স্মিথ করেন মাত্র ৩ রান। 

ফর্মে মাভি-নাগরকোটি-
দুর্দান্ত বোলিং করেন কাল কেকেআরের দুই তরুণ পেসার শিবম মাভি এবং কমলেশ নাগরকোটি। শিবম মাভি ৪ ওভার হাত ঘুরিয়ে ২০ রান দিয়ে নেয় ২ উইকেট। ২ ওভারে ১৩ রান দিয়ে দুই উইকেট নাগরকোটির। 

একা কুম্ভ টম-
কাল প্রথমদিকে জস বাটলারকে বাদ দিলে রাজস্থানের টপ অর্ডার পুরো ব্যর্থ। শেষপর্যন্ত একা লড়াই করে দলকে সম্মানজনক জায়গায় পৌছিয়ে দেন টম ক‍্যারান। ৩৬ বলে ৫৪ করেন তিনি। 

টানা জয় কেকেআরের-
দীর্ঘদিন পর টুর্নামেন্টের শুরুটা হেরে হয়েছিল কেকেআরের। কিন্তু তারপরের দুই ম্যাচ রীতিমতো দাপট দেখিয়ে জেতে নাইটরা। শেষবার যখন হেরে শুরু করেছিল নাইটরা, তখন আইপিএল জিতেছিল তারা। এই বারও কি সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হবে?