আইপিএলে কেকেআর দলে সেভাবে বাংলার প্রতিনিধি না থাকা নিয়ে ক্ষোভ দীর্ঘ দিনের। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। কিন্তু সীমিত সুযোগে এবারের আইপিএলে স্বর্ণোজ্জ্বল সানরাইজার্স হায়দরবাদে ঋদ্ধিমান সাহার পারফরমেন্স।  প্রথমদিকে তেমন সুযোগ না পেলেও, লিগর শেষ তিন ম্যাচ যা কার্যত ডু অর ডাই ছিল হায়দরাবাদের কাছে সেখানে অনবদ্য পারফরমেন্স করেছেন ঋদ্ধি। শুধু ব্যাট হাতে নয়, উইকেটের পেছনেও নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করেছেন তিনি। কিন্তু শেষ দুই ম্যাচে চোটের কারণে খেলতে পারেননি ঋদ্ধি। প্লে অফে আরসিবির বিরুদ্ধে দল জিতলেও, দিল্লির বিরুদ্ধে হেরে আইপিএল থেকে বিদায় নিয়েছে সানরাইজার্স। কিন্তু ঋদ্ধির পারফরমেন্স দীর্ঘ দিন মনে থাকবে ক্রিকেট প্রেমিদের। আইপিএলে ঋদ্ধির অনবদ্য পারফরমেন্স, চোট সমস্যা থেকে আসন্ন অস্ট্রেলিয়া সফর, এই সব কিছু নিয়েই এশিয়ানেট নিউজ বাংলার স্পোর্টস রিপোর্টার সুদীপ পালের সঙ্গে কথা বলেছিলেন ঋদ্ধির ছেলেবেলার কোচ জয়ন্ত ভৌমিক। সাফ কথা তিনি জানালেন,'ব্যর্থতায় ভেঙে পড়া নয়, চ্যালেঞ্জ নিয়ে ফিরে আসার নামই ঋদ্ধি'।

১. এশিয়ানেট নিউজ বাংলাঃ সীমিত সুযোগে আইপিএলে ঋদ্ধির অনবদ্য পারফরমেন্স, কী বলবেন?
জয়ন্ত ভৌমিকঃ লিগ হলেও শেষ তিনটি ম্যাচ নকআউট ছিল সানরাইজার্সের। সেখানে সুযোগ পেয়ে পারফর্ম করে ঋদ্ধি আরও একবার প্রমাণ করেছেন শুধু লাল বল নয় সাদা বলের ক্রিকেটেও তিনি সমানভাবে পারদর্শী। সুযোগ পেলে সব ক্ষেত্রেই নিজেকে প্রমাণ করার যোগ্যতা রয়েছে ঋদ্ধিমান সাহার।

২. এশিয়ানেট নিউজ বাংলাঃ প্রথম দিকে দলে সুযোগ না পাওয়া ও পরে ডু অর ডাই পজিশনে সুযোগ, কতটা চ্যালেঞ্জের?
জয়ন্ত ভৌমিকঃ প্রথমদিকে কেকেআরের বিরুদ্ধে একটি ম্যাচে ৩০ বলে ৩১ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। সেই ম্যাচেও কিন্তু সানরাইজার্সের অন্যন্য প্লেয়াররা তেমন রান করতে পারেননি। কিন্তু টিম ম্যানেজমেন্ট মনে করেছে তাকে বাইরে রাখা ঠিক হবে তাই রেখেছে। কিন্তু ভেঙে পড়ার ছেলে নয় ঋদ্ধি। ও নিজের অুশীলন চালিয়ে গিয়েছে ও সুযোগের অপেক্ষায় ছিল। সুযোগ এসেছে পারফর্ম করেছে। চ্যালেঞ্জ নিয়ে ফিরে আসার নামই ঋদ্ধি।

৩. এশিয়ানেট নিউজ বাংলাঃ জনি বেয়ারস্টোর মত টি-টোয়েন্টির তারকা প্লেয়ারকে রিপ্লেস করা কতটা চাপের?
জয়ন্ত ভৌমিকঃ জনি বেয়ারস্টো বিশ্ব টি-২০ ক্রিকেটে অনবদ্য ক্রিকেটার এই নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু জনি বেয়ারস্টো নিজের দলের হয়েও কিপিং করেন না। সেখানে বাটলার করেন। এখানে কিপার হিসেবে ঋদ্ধির দলে সুযোগ পাওয়া উচিৎ ছিল। শেষের দিকে জনি বেয়ারস্টোর মত তারকাকে রিপ্লেস করে তার জায়গায় পারফর্ম করা সত্যিই অনবদ্য।

৪. এশিয়ানেট নিউজ বাংলাঃ লোয়ার মিডল অরডারের পরিবর্তে ওপেনিংয়ে সুযোগ পেয়েই কি আরও বেশি ভয়ঙ্কর হয়ে উঠলেন ঋদ্ধমান সাহা?
জয়ন্ত ভৌমিকঃ একদমই তাই। সাদা বলের ক্রিকেটে ঋদ্ধি বরাবারই ওপরের দিকে ব্যাট করতে পছন্দ করেন। ঘরোয়া ক্রিকেটেও নিজেকে বারবার প্রমাণ করেছেন। ঋদ্ধি যেহেতু দমে না থেকে নিজের শট খেলতে পছন্দ করেন, তাই টি২০ ক্রিকেটের পাওয়ার প্লের যতটা সম্ভব সুবিধা ও নিয়েছে। আর ফলাফল সকলের সামনে রয়েছে। 

৫. এশিয়ানেট নিউজ বাংলাঃ প্রিয়ম গর্গ, বিজয় শংকররা যত সুযোগ পেয়েছে, ঋদ্ধির কি আরও বেশ সুযোগ প্রাপ্য ছিল না?
জয়ন্ত ভৌমিকঃ অবশ্যই ঋদ্ধির আরও বেশি সুযোগ পাওয়া উচিৎ ছিল। প্রথম দিকে একটি ম্যাচে শুধু কেকেআরের বিরুদ্ধে সুযোগ। তারপর বসিয়ে দেওয়া, এর কারণ টিম মেনেজমেন্টই বলতে পারবে। কিন্তু আমার মনে একটি নয়, পরপর ৩-৪টি ম্যচে সুযোগ পাওয়া উচিৎ। সেখানে ব্যর্থ হলে কিছু বলার ছিল না। যাই হোক টিম ম্যানেজমেন্ট পরে আবার তাকে দলে সুযোগ দিয়েছে, ওপেনিং করিয়েছে, ঋদ্ধিও পারফর্ম করে নিজেকে প্রমাণ করেছে।

৬. এশিয়ানেট নিউজ বাংলাঃ ৮৭, ৩৯, ৫৮ তিনটি ম্যাচ উইনিং ইনিংস, উইকেট কিপারের পাশাপাশি ব্যাটসম্যান ঋদ্ধি সম্পর্কে কি বলেবন?
জয়ন্ত ভৌমিকঃ ঋদ্ধি বরাবরই স্ট্রোক খেলতে ভালোবাসেন। আমি আগেও বলেছি ও আবারও বলছি ঋদ্ধি শুধু লাল বল নয়, সাদা বলের ক্রিকেটে ও সমান পারদর্শী। পাওয়ার প্লে তে যেভাবে ও শট খেলেছে তা অনবদ্য। ঋদ্ধি যে কতটা তৈরি সব ধরনের ক্রিকেটের জন্য এই তিন ইনিংসই তাক প্রমাণ।

৭.এশিয়ানেট নিউজ বাংলাঃ  শেষ দুটি ম্যাচে ঋদ্ধির না থাকার কারণেই কি আইপিএল থেকে বিদায় নিল সানরাইজার্স?
জয়ন্ত ভৌমিকঃ একদমই। ঋদ্ধি যে বিধ্বংসী ফর্মে ছিল, শেষ দুটি ম্যাচেও তা কাজে লাগানো যেত। আরসিবির বিরুদ্ধে লো স্কোরিং ম্যাচেও জিততে কিছুটা সমস্যা হয়েছিল। সেখানে ওপেনিং করেচিলেন শ্রীবৎস। দিল্লির বিরুদ্ধে ওপেনিং করেন প্রিয়ম গর্গ। কিন্তু ঋদ্ধি ও ওয়ার্নার ওপেনিংয়ে সেট হয়ে গিয়েছিল। ফলে ঋদ্ধি থাকলে হয়তো আমরা সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে আইপিএল ফাইনালেও দেখতে পেতাম। 

৮. এশিয়ানেট নিউজ বাংলাঃ চোটের কারণে শেষ দুটি ম্যাচে খেলতে পারেননি ঋদ্ধি। চোট কতটা গুরুতর?
জয়ন্ত ভৌমিকঃ মাসেলে চোট তো খুব একটা গুরুতর  নয়। অনেকেই আইপিএলে চোট পেয়েছেন, আবার ফিরেও এসেছেন। অনেকর তাড়াতাড়ি সেরে ওঠে, আবার অনেকের একটু সময় লাগে। তবে ঋদ্ধির চোট গুরুতর নয়। চোট নিয়ে বা লুকিয়ে খেলার ছেলে ও নয়। তাই না খেলার সিদ্ধান্ত নেয়। আশা করছি খুব তাড়াতাড়ি সেরে উঠবে ঋদ্ধি।

৯. এশিয়ানেট নিউজ বাংলাঃ অস্ট্রেলিয়া সফরে ঋদ্ধির যাওয়া নিয়ে কি কোনও অনিশ্চিয়তা রয়েছে?
জয়ন্ত ভৌমিকঃ না। আমার তো মনে হচ্ছে না অস্ট্রেলিয়া সফরে ঋদ্ধির কোনও রকম অনিশ্চয়তা রয়েছে। সফরের এখনও অনেক দিন বাকি। তারপরল কোয়ারেন্টাই পর্বও রয়েছে। আমার মনে হচ্ছে তার আগেই ঋদ্ধি চোট সারিয়ে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবেন।

১০. এশিয়ানেট নিউজ বাংলাঃ অস্ট্রেলিয়া সফরে ঋষভ পন্থও রয়েছেন, আপনাপ কি মনে হয় যে প্রথম পছন্দ ঋদ্ধিই হওয়া উচিৎ?
জয়ন্ত ভৌমিকঃ ভারতীয় দলে যারা সুযোগ পান তারা সকলেই যোগ্য। আমি শুধু একটা কথা বলব সকলের সমান সুযোগ পাওয়া উচিৎ। কোনও পক্ষপাতিত্ব যেনও না হয়। আমার বিশ্বাস ম্যানেজমেন্ট সেই দিকটা দেখবে। আর ঋদ্ধি এই মুহূর্তে বিশ্বের অন্যতম সেরা উইকেট রক্ষক। আমাদের সকলেরই জানা যে, অস্ট্রেলিয়ার হার্ড ও বাউন্সি উইকেটে শুধু ব্যাটিং নয়, কিপিংও কতটা গুরুত্বপূর্ণ। সেক্ষেত্রে ঋদ্ধি সুযোগ পাবে বলে আমি আশাবাদী।