আজ আইপিএলের ডবল হেডারের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হতে চলেছে চেন্নাই সুপার কিং ও কিংস ইলেভেন পঞ্জাব। দুই দলই তাদের প্রথম চারটি ম্যাচের মধ্যে একটিতে জয় পেয়েছে। ধোনির সিএসকে এবছর আশানুরূপ পারফর্ম করতে না পারলেও, ভাল খেলেও জয় অধরা থেকে গিয়েছে কেএল রাহুলের দলে। তাই প্রতিযোগিতায় পয়েন্ট টেবিলের লড়াইতে ফিরতে হলে আজ দুবাই ইন্টার ন্যাশানালল স্টেডিয়ামে ম্যাচ জিততে মরিয়া দুই দলের অধিনায়ক ও প্লেয়াররা। ফলে আরও একটি রুদ্ধশ্বাস ম্যাচ দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন ক্রিকেট প্রেমিরা। 

আইপিএল ২০২০-র প্রথম ম্য়াচে মুম্বইকে হারিয়ে অভিযান শুরু করেছিল চেন্নাই সুপার কিংস। কিন্তু তারপর লাগাতার তিনটি ম্যাচ হেরে প্রতিযোগিতায় যথেষ্ট কোণঠাসা হয়ে পড়েছে এমএস ধোনির দল। তাই জয় ছাড়া বর্তমানে কোনও গতি নেই সিএসকের। ম্যাচ একটি জিতলেও, পঞ্জাব দল যে খুব শক্তিশালী তা জানে সিএসকে শিবির। তাই নিজেদের সেরাট উজার করে দিতে মরিয়া প্লেয়াররা। ওপেনাররা রান না পাওয়া ও মিডল অর্ডারে ফাফ ডুপ্লেসি বাদে সকলের লাগাতার ব্যর্থতা চিন্তা বাড়িয়েছে সিএসকে ম্যানেজমেন্টের। পীযুষ চাওলা, রবীন্দ্র জাদেজা, দীপক চাহারদের বোললিংয়েও রয়েছে ধারাবাহিকতার অভাব। যদিও অম্বাতি রায়ডু ও ডোয়েইন ব্রাভো দলে ফেরা স্বস্তি ফিরেছে সিএসকে শিবিরে।  তবে আজকের ম্যাচ যে তার দলের কাছে  কঠিন হতে চলেছে তা বেশ জানেন ধোনি। তবে জয়ে ফিরতে মরিয়া তিনবারের আইপিএল চ্যাম্পিয়নরা।

অপরদিকে, প্রথম ম্যাচে দুরন্ত খেলেও সুপার ওভারে হারতে হয়েছিলল পঞ্জাবকে। দ্বীতীয় ম্যাচে জয় আসলেও, শেষ দুটি ম্যাচে ফের হারতে হয়েছে কেএ রাহুলের দকে। ফলে প্রতিযোগিতায় অনেকটাই পিছিয়ে পড়ছে কোচ অনিল কুম্বলের দল। বিশেষ করে দল অতিরিক্ত পরিমাণে মায়াঙ্ক আগরওয়াল ও কেএল রাহুল নির্ভর হয়ে যাওয়াই পঞ্জাব দললের প্রধান সমস্যা বলে মনে করছেন ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা। ওপেনে মায়াঙ্ক ও রাহু না পেলে মিডল অর্ডার এখনও সেভাবে ভরসা জোগাতে পারেনি। পুরান, ম্যাক্সওয়েল, করুন নায়াররা বড় রান করতে পারেনি। বোলিং লাইনআপে মহম্মদ শামি ছাড়া কটরেল, বিষ্ণোই, কৃষ্ণাপ্পা গৌতমদের ধারাবাহিকতার অভাবও ভোগাচ্ছে পঞ্জাব দলকে। তবে সিএসকের বিরুদ্ধে নিজেদের পূর্ণ শক্তির দব নিয়েই ঝাঁপাতে চলেছে কিংস ইলেভেন পঞ্জাব। এই ম্য়াচে জয় ফিরতে মরিয়া অধিনায়ক কেএল রাহুলও। 

পিচ ও ওয়েদার রিপোর্ট-
দুবাইয়ের উইকেট একেবারে ব্যাটিং সহায়াক হতে চলেছে। তবে বোললারদের জন্যও থাকছে অল্প সাহায্য। মাঠ বড় হওয়ায় স্পিনার বাড়তি সুবিধা পাবে। যেই দল প্রথমে ব্যাটিং করবে তাদের অ্যাডভান্টেজ অনেক বেশি থাকবে। দুবাইয়ের আবহাওয়া আজ ৩৪ ডিগ্রির আশেপাশে থাকবে। গরমের াপশাপাশি বজায় থাকবে আদ্রতাজনিত অস্বস্তি।

ম্যাচ প্রেডিকশন-
দুই দলই সমান শক্তিশালী তাই মনে করা হচ্ছে যেই দল প্রথমে ব্যাট করবে তারাই বাজিমাত করবে আজকের ম্যাচে।