আইএসএলের দ্বিতীয় ডার্বিতেও প্রথম লেগের পুনরাবৃত্তি। জঘন্য ডিফেন্সের খেসারত দিয়ে এটিকে মোহনবাগানের মধ্যে ৩-১ গোলে ম্যাচ হারতে হল এসসি ইস্টবেঙ্গলকে। ম্য়াচে গোল করে ও করিয়ে আরও একবার সবুজ-মেরুণ ব্রিগেডের নয়ণের মণি হয়ে উঠলেন রয় কৃষ্ণা। ম্য়াচে অ্যান্টোনিও লোপেজ হাবাসের দলের হয়ে ৩ টি গোল করেন রয় কৃষ্ণা, ডেভিড উইলিয়ামস ও জাভি হার্নান্ডেজ। তিরির আত্মঘাতি গোল ১ গোল হয় ইস্টবেঙ্গলের। এই ম্য়াচ জয়ের ফলে চ্যাম্পিয়নস লিগে কোয়ালিফাইয়ের দৌড়ে আরও এক কদম এগিয়ে গেল মোহনবাগান।

 

 

এদিন টানটান উত্তেজনায় শুরু হয় আইএসএলের দ্বিতীয় ডার্বি। ম্য়াচের প্রথম থেকেই আক্রমণ-প্রতি আক্রমণে জমে ওঠে খেলা। দুই দলই প্রথম থেকে গোলের জন্য ঝাপায়। কিন্তু ম্য়াচের ১৫ মিনিটে আরও একবার এটিকে মোহনবাগানের হয়ে কাজের কাজটা করে যান গোল মেশিন রয় কৃষ্ণা। রক্ষণের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে গোল করে যান রয় কৃষ্ণা। প্রথম গোল হজম করার পর আক্রমণের মাত্রা বাড়ায় এসসি ইস্টবেঙ্গল। কিন্তু গোলের মুখ খুলতে পারছিলেন না। কিন্তু প্রথমার্ধের একেবারে শেষ মুহূর্তে রক্ষণের ভুলে আত্মঘাতী গোল হজম করতে হয় এটিকে মোহনবাগানকে। ১-১ সমতায় শেষ হয় প্রথমার্ধের খেলা।

 

 

দ্বিতীয়ার্ধের খেলার শুরু থেকেই ম্যাচের রাশ নিজেদের হাতে নিতে শুরু করে এটিকে মোহনবাগান। একের পর এক আক্রমণ আছড়ে পড়তে থাকে লাল-হলুদের বক্সে। যার ফল স্বরূপ ম্য়াচের ৭২ মিনিটে রক্ষণের ভুলে গোলের সুযোগ তৈরি হয়ে যায়। আর সেই সুযোগ থেকে গোল করতে ভুল করেননি ডেভিড উইলিয়ামস। ২-১ এগিয়ে গিয়েও দমে যায়নি লোপেজ হাবাসের দল। যার ফলে ক্রস থেকে হেড থেকে অনবদ্য গোল করে এটিকে মোহনবাগানকে ৩-১ গোলে এগিয়ে দেন জাভি হার্নান্ডেজ। ২ গোলের ব্যবধানে পিছিয়ে গিয়ে ম্য়াচে ফেরার আর কোনও সুযোগ ছিল না লাল-হলুদ ব্রিগেডের। ৩-১ ব্যবধানে ম্য়াচ জিতে নেয় এটিকে মোহনবাগান। এই জয়ের ফলে ১৮ ম্য়াচে ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের প্রথম স্থানে নিজেদের জায়গা আরও পাকা করল সবুজ-মেরুণ ব্রিগেড।