জয় দিয়ে বছরটা শুরু করলেও, দ্বিতীয় ম্যাচে আটকে গেলো এসসি ইস্টবেঙ্গল। এফসি গোয়ার বিরুদ্ধে ১-১- ড্র করল রবি ফাউলারের দল। ৪০ মিনিটেরও বেশি সময় ১০ জনে খেলেও গোল করে এগিয়ে গিয়েছিল লাল-হলুদ ব্রিগেড। কিন্তু সেই লিড বেশিক্ষণ ধরে রাখতেপারেন ইস্টবেঙ্গল রক্ষণ। পরপর দু ম্য়াচে গোল করে ফের লাল-হলুদের আক্রমণকে ভরসা দেন ব্রাইট এনোবাখারে। গোয়ার হয়ে গোল শোধ করেন দেবেন্দ্র মুরগাওয়ানকর। এগিয়ে গিয়েও ম্যাচ ড্র হওয়ায় হতাশ লাল-হলুদ ব্রিগেড।

এদিন ম্যাচের শুরু ব থেকেই টানটান উত্তেজনায় শুরু হয় খেলা। প্রথম থেকেই লাল-হলুদ রক্ষণের উপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকে গোয়ার অ্যাটাকিং লাইন। যা সামলাতে বেশ ঘাম ঝড়াতে হয় স্কট নেভিল, ড্যানি ফক্স, রাজু গায়কোয়ার্ডদের। বল পজিশন, পাসিং থেকে গোলমুখী শট সব কিছুতেই রবি ফাউলারের দলকে টেক্কা দেয় জুয়ান ফেরান্ডোর দল। যদিও প্রথমার্ধে রক্ষণ সামলেই আক্রমণে যাওয়ার রণনীতি নিয়েছিল লাল-হলুদের ব্রিটিশ কোচ।ফলে প্রথমার্ধের খেলা শেষ হয় গোলশূন্যভাবে।

ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধেও গোলের জন্য ঝাঁপায় দুই দলই। ম্যাচের ৫৬ মিনিটে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন ড্যানি ফক্স। রক্ষণের স্তম্ভ বেরিয়ে যাওয়ায় চাপ বাড়ে দলের উপর। যদিও এই ম্যাচেও নজর কাড়েন এসসি ইস্টবেঙ্গলের নয়া বিদেশি ব্রাইট এনোবাখারে। ম্যাচের ৭৯ মিনিটে তার গোলেই এগিয়ে যায় লাল-হলুদ ব্রিগেড। যদিও ২ মিনিটের মধ্যেই গোল শোধ ককরে গোয়াকে সমতায় ফেরায় দেবন্দ্র মুরগাওয়ানকর। এরপর দুই দল বেশ কিছু সুযোগ তৈরি করলেও গোলের মুখ খুলতে সমর্থ হয়নি। এই ম্যাচ ড্রয়ের ফলে ৯ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের ৯ নম্বর স্থানে রইল ইস্টবেঙ্গল। ৯ তারিখ পরবর্তী প্রতিপক্ষ বেঙ্গালুরু এফসি।