লকডাউনের বাজারে রেশন দুর্নীতি নিয়ে সোচ্চার বিরোধীরা। জেলাশাসককে স্মারকলিপি দিতে গিয়ে গ্রেফতার হলেন খোদ জেলা সভাপতি-সহ বেশ কয়েকজন বিজেপি নেতা ও কর্মী। ঘটনায় শোরগোল পড়েছে জলপাইগুড়িতে।
 

আরও পড়ুন: টিকিয়াপাড়ার ঘটনায় মূল প্ররোচক বিজেপি নেতার ভাই,টুইট করে দাবি হাওড়া পুলিশের

আপাতত লকডাউন উঠছে না। তৃতীয় দফায় মেয়াদ বাড়ল আরও দুই সপ্তাহ। যাঁদের বিপিএল কার্ড আছে, তাঁদের ছয়মাস বিনামূল্য রেশন থেকে বিনামূল্যে খাদ্যসামগ্রী দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আর তা নিয়েই যত গণ্ডগোল। কোথাও  রেশনে কারচুরি, তো কোথাও আবার নিম্নমানের সামগ্রী দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। দুর্নীতি নিয়ে ক্ষোভ বাড়ছে আমজনতার।  চলছে অবরোধ-বিক্ষোভ, রেহাই পাচ্ছেন না রেশন ডিলাররাও।সোমবার হুগলির শ্রীরামপুরে কম রেশন দেওয়ার অভিযোগে ডিলারকে দোকান বেঁধে রেখে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয় বাসিন্দা। রেশন বিক্ষোভে রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছিল মুর্শিদাবাদের সালারও। সেখানে আবার স্বাস্থ্য বিধির তোয়াক্কা না করে ডিলারের বাড়িতে চড়াও হন গ্রাহকরা। বাড়ির সামনে আগুন জ্বালানো হয়।

রেশন দুর্নীতি, দলের নেতা-কর্মীদের অন্য়ায়ভাবে গ্রেফতার-সহ একাধিক ইস্যুতে সোমবার জলপাইগুড়িতে পথে নামেন বিজেপি জেলার সভাপতি বাপি গোস্বামী। দলের নেতা-কর্মীদের নিয়ে যখন জেলাশাসকের কাছে স্মারকলিপি দিতে যাচ্ছিলেন, তখন শহরের পি ডব্লিউ ডি মোড়ে বাপি-সহ চারজনকে গ্রেফতার করে কোতুয়ালি থানার পুলিশ। জেলার সভাপতি অবশ্য দাবি, সামাজিক দূরত্ব মেনেই জেলাশাসকের সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছিলেন। পুলিশ অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করেছে। 

আরও পড়ুন: করোনা গুজবে বিড়ম্বনায় মা-মেয়ে, গ্রেফতার অভিযুক্ত

আরও পড়ুন: রেশন বিক্ষোভ এবার হুগলিতেও, ডিলারকে পিছমোড়া করে বেঁধে রাখলেন স্থানীয়রা

উল্লেখ্য, জলপাইগুড়িতে কিন্তু রেশন দুর্নীতিতে নাম জড়িয়েছে বিজেপিরও। দিন কয়েক আগে বানারহাটে দলের কার্যালয়ে অভিযান চালান ফুড ইন্সপেক্টর। উদ্ধার হয় বস্তাবন্দি কয়েকশো কুইন্টাল চাল। ঘটনার তদন্তের দাবি তুলেছে তৃণমূল।