উত্তমা সরকার, জলপাইগুড়ি:  বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে 'গণধর্ষণ'! সামাজিক লজ্জা থেকে বাঁচতে বিষ খেয়ে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নিল দুই নাবালিকা বোন। একজন মারা গিয়েছে, আর একজন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে হাসপাতালে।  নারকীয় ঘটনার সাক্ষী থাকল জলপাইগুড়ির রাজগঞ্জ। তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন: নাবালিকাকে ধর্ষণের চেষ্টা, অভিযুক্তের মাথা ন্যাড়া করে চুনকালি দিল এলাকাবাসী

তাদের বাবা স্থানীয় এক চা বাগানের কর্মী। নির্যাতিতা দুই বোনের বাড়ি রাজগঞ্জে সন্ন্যাসীকাটা পঞ্চায়েতের নবগ্রাম এলাকায়। পরিবারের লোকেদের দাবি, বাড়িতে থেকে তাদের ডেকে নিয়ে যায় পাশের গ্রামে কয়েকজন যুবক। ধর্ষণের চেষ্টা করে অভিযুক্তেরা। কোনওমতে পালিয়ে বাড়ি ফেরে নির্যাতিতারা। বাড়ি ফেরার পর সামাজিক লজ্জার ভয়ে একসঙ্গে বিষ খায় দু'জনেই! এরপর তাদের তড়িঘড়ি নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় হাসপাতালে। পরে রোগীদের স্থানান্তরিত উত্তরবঙ্গ মেডিক্যা কলেজ ও হাসপাতালে। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। সোমবার রাতে হাসপাতালে মারা যায় দিদি। আর মৃত্যু লঙ্গের পাঞ্জা লড়ছে বোন।

আরও পড়ুন: বিজেপির মহিলাকর্মীকে গুলি, প্রতিবাদে বিষ্ণুপুর থানা ঘেরাও বিজেপির

নির্যাতিতাদের মধ্যে যে মারা গিয়েছে, তার দেহ মঙ্গলবার সকালে আনা হয় গ্রামে বাড়িতে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান রাজগঞ্জের বিধায়ক খগেশ্বর রায়-সহ অন্যন্য তৃণমূল নেতারা। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয় রাজগঞ্জ থানায়। তিনজন অভিযুক্তকে গ্রেফতারও করেছে পুলিশ। ধৃতদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে মামলাও দার করা হয়েছে। দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি তুলেছে সকলেই।