শাজাহান আলি, ঝাড়গ্রাম:  করোনার আতঙ্ক! জ্বরে হলেই যখন মুখ ফেরাচ্ছেন প্রতিবেশীরা, তখন উল্টো পথে হেঁটে মানবিকতার পরিচয় দিলেন যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি। পিপিই কিট পরে বাইকে চাপিয়ে জ্বরে আক্রান্ত ব্যক্তিকে পৌঁছে দিলেন হাসপাতালে। ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়গ্রামের গোপীবল্লভপুরে।

আরও পড়ুন: ২৪ ঘণ্টায় ৫৬ জনের মৃত্যু, রাজ্য়ে একদিনে করোনা আক্রান্ত প্রায় তিন হাজার

কর্মসূত্রে ছিলেন গ্রামের বাইরে। গত কয়েক দিন ধরে বারবারই জ্বর আসছিলেন গোপীবল্লভপুরের সিজুয়া গ্রামের এক বাসিন্দার। এরপর যখন গ্রামে ফেরেন, তখন তাঁর ৩ জন সঙ্গীও অসুস্থ হয়ে পড়েন। করোনা সন্দেহের লালারস পরীক্ষা করা তাঁদের। এর কিছুদিন পর  আরও অসুস্থ হয়ে পড়েন ওই ব্যক্তি। জ্বর তো ছিলই, এবার সর্দি-কাশির উপসর্গ দেখা দেয়। ব্যস আর যায় কোথায়! করোনার আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। সংক্রমণের ভয়ে প্রতিবেশীরা কেউ সাহায্য করতে এগিয়ে আসেননি বলে অভিযোগ। বাড়িতে স্ত্রী ও শিশুসন্তান ছাড়া কেউ নেই, হাসপাতাল প্রায় ৫-৬ কিলোমিটার দূরে। 

রোগীর অসহায় অবস্থার কথা জানতে পেরে শেষপর্যন্ত সাহায্য হাত বাড়িয়ে দিলেন গোপীবল্লভপুর  ১ নম্বর ব্লকের যুব তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি সত্যকাম পট্টনায়েক। তিনি নিজে পিপিই কিট করে বাইকে পিছনে বসিয়ে জ্বরে আক্রান্ত ওই ব্যক্তিকে পৌঁছে দিলেন গোপীবল্লভপুর সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। শুধু তাই নয়, হাসপাতালে কোভিড-সহ অন্যন্য পরীক্ষার রোগীকে বাড়িতে ফিরিয়ে আনেন যুব  তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতিই। করোনা আতঙ্কে মাঝে এমন ঘটনা নজর কেড়েছে সকলেরই।

আরও পড়ুন: সরকারি নির্দেশে রাজ্য়ে কোভিড হাসপাতালগুলিতে কত খরচ, জানুন বিস্তারিত

কী বলছেন গোপীলবল্লভপুর ১ নম্বর ব্লকের যুব তৃণমূল সভাপতি সত্যকাম পট্টনায়েক? তাঁর বার্তা,'করোনা নিয়ে এখন সকলেই আতঙ্কিত। কিন্তু মানুষ অসুখ-বিসুখ হতে পারেই। এলাকায় মানুষের সবরক সাহায্য করতে প্রস্তুত যুব তৃণমূল কর্মীরা।'