আর মাত্র কয়েকদিনের অপেক্ষা। কৈলাশ থেকে ছেলেপুলে সহ বাপের বাড়ি আসছেন 'মা'। শরতের মেঘলা আকাশ, শিউলি ফুলের গন্ধ ইতিমধ্যেই জানান দিচ্ছে সে কথা। সেইমত শুরু হয়ে গিয়েছে পুজোর প্রস্তুতি পর্বও। কুমোড়টুলির মতো নানান জায়গায় জোড় কদমে চলছে মায়ের মূর্তি তৈরির অন্তিম পর্ব। আর এরই মধ্যে নিজেদের নতুন নতুন চিন্তাভাবনা নিয়ে প্যান্ডেলের কাজ শুরু করেছে দুর্গা পুজো কমিটিগুলি। সারা বছর ধরে অধীর আগ্রহে মানুষ অপেক্ষা করে থাকেন দুর্গা পুজোর জন্য। তার মধ্যে কলকাতার পুজো-কে ঘিরে উন্মাদনা বরাবরই তুঙ্গে থাকে। শপিং থেকে প্যান্ডেল হপিং-এর প্ল্যান শুরু হয়ে গিয়েছে এরই মধ্যে।

আরও পড়ুনঃ নাম লেখাননি এখনও, দেরি না করে অংশ নিন এশিয়ানেট নিউজ শারদ সম্মান ২০১৯-এ 

১৯ তম বর্ষে পা দিতে চলেছেন দমদম পার্ক ভারতচক্র। এই ক্লাবের পুজো নিয়ে বরাবরই একটা আলাদাই ভালোলাগা থাকে দর্শনার্থীদের মধ্যে। অন্যান্য বছরের মত এবছরেও নানা রঙ, আলোক সজ্জা, ও অভিনবত্বে সেজে উঠবে এই ক্লাব। এবছরের তাদের বিষয় 'আসছি'। যদিও কোনোভাবেই খোলসা করে জানা যায়নি এই থিমের সম্পর্কে। দমদম পার্ক ভারত চক্র ক্লাবের এবছরের থিমের সৃজনে রয়েছেন পূর্ণেন্দু দে। প্রতিমা সজ্জায় রয়েছেন অরূপ কর এবং আলোকসজ্জা ও আবহ সঙ্গীতে রয়েছেন দেবব্রত মাইতি ও জয় সরকার। তবে অপেক্ষার আর বেশি দিন নেই। এই অভিনব থিম খোলসা করে জানতে গেলে অবশ্যই আসতে হবে এই পুজোমণ্ডপে। 

আরও পড়ুনঃ আদ্যিকালের দুর্গার সঙ্গে নতুনের মেলবন্ধন, নতুন থিমে রাজডাঙ্গা নবোদয় সংঘ

গতবছরেও পূর্ণেন্দু দে-এর সৃজনে এমনই আর একটি অসাধারন থিম উপহার দিয়েছিল দমদম পার্ক ভারতচক্র। তাদের গতবছরের থিম ছিল 'ঘরে ও বাহিরে'। আগের বছরেও তাদের এই থিমের মাধ্যমে অসাধারন এক বার্তা দিয়েছিলেন এই ক্লাব। তা অধিক জনপ্রিয় হয়েছিল দর্শনার্থীদের মধ্যে। তাই এবছর এই থিমের মাধ্যমে কোন নতুন চমক দিতে চলেছে তারা। সেটা জানার জন্য আর মাত্র কিছুদিনের অপেক্ষা। 

আর ঠিকানা নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। দমদম পার্কে গেলেই সামনে দেখতে পাবেন এই ক্লাব।